নিউইয়র্কে ড্যাফোডিল অ্যালামনাইদের মিলনমেলা ১৫ জুন

নিউইয়র্কে ড্যাফোডিল অ্যালামনাইদের মিলনমেলা ১৫ জুন

  • ক্যাম্পাস ডেস্ক

আগামী ১৫ জুন নর্থ  আমেরিকার নিউইয়র্কে ড্যাফোডিল অ্যালামনাইদের পূনর্মিলনী ২০১৯ অনুষ্ঠিত হবে।  ওই দিন ম্যানহাটনের স্কাই পোর্ট মেরিনা থেকে ‘এম্পায়ার ক্রুজ’ জাহাজটি ছেড়ে যাবে। একটানা চার ঘন্টা পানিতে ভেসে বেড়ানোর সময় এতে থাকা এলামনাই সদস্যরা স্মৃতিচারণ করবেন, নাচে-গানে আনন্দে মেতে উঠবেন।

অনুষ্ঠানটিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ভয়েস অব আমেরিকার বাংলা বিভাগের প্রধান রোকেয়া হায়দার ও ড্যাফোডিল পরিবারের চেয়ারম্যান ড. মো. সবুর খান। এ ছাড়া অনুষ্ঠানে আরো যোগ দিবেন ড্যাফোডিল পরিবারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ নুরুজ্জামান ও চীফ অপারেটিং অফিসার মোহাম্মদ ইমরান হোসেন। নর্থ আমেরিকায় বসবাসকারী ড্যাফোডিল পরিবারের শতাধিক প্রাক্তন শিক্ষার্থী এবং তাদের পরিবারবর্গ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহন করবেন।

আয়োজন সম্পর্কে ড্যাফোডিল পরিবারের চেয়ারম্যান ড. মো. সবুর খান বলেন, ‘কয়েক সহস্রাধিক ড্যাফোডিল অ্যালামনাই পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছেন এবং অনেকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ পদে কর্মরত আছেন। দেশভিত্তিক নন-রেসিডেন্ট ড্যাফোডিল অ্যালামনাই নেটওয়ার্ক গঠন ও সেগুলোর সমন্বয়ে গ্লোবাল নেটওয়ার্ক স্থাপন করে বাংলাদেশের উন্নয়নে তাদের দক্ষতা ও অভিজ্ঞতাকে কিভাবে কাজে লাগানো যায় সে  লক্ষ্যে এ আয়োজন। এর আগে ২৪ ফেব্রুয়ারি লন্ডনে এধরনের পূনর্মিলনীর আয়োজন করা হয়েছিল এবং আগামীতে কানাডায়ও এধরনের আয়োজন করা হবে। ’ বিশ্বব্যাপী ড্যাফোডিলের এই জয়যাত্রা অব্যাহত থাকবে এবং বাংলাদেশের উন্নয়নে এর কার্যকর বহিঃপ্রকাশ ঘটবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।  

নর্থ আমেরিকার এই মিলনমেলাকে সফল করার জন্যে ইতোমধ্যে ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। ড্যাফোডিল পরিবারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ নূরুজ্জামান বলেন, ‘আমাদের এই আয়োজনের উদ্দেশ্য কয়েকটি। যারা আমাদের পরিবারের সদস্য, তাদের জীবনব্যাপী সঙ্গে রাখা। এক ধরনের যোগাযোগ নিশ্চিত করা। আর সবার উপরে তো দেশ, প্রিয় বাংলাদেশ। সাবেক শিক্ষার্থীরা কীভাবে যার যার অবস্থান থেকে দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে পারেন, তার জন্য একটি মঞ্চ প্রস্তুত করা। এতে বিপুল সাড়ায় আমরা অভিভূত।’

এর আগে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে লন্ডনের পামট্রি ব্যাংকুয়েট হলে অনুষ্ঠিত হয়েছে ‘ড্যাফোডিল অ্যালামনাই ইউকে পুনর্মিলনী ২০১৯’। সফল অনুষ্ঠানটিতে অংশ নিয়েছিল ড্যাফোডিল পরিবারের শতাধিক সাবেক সদস্য। অনুষ্ঠানটিতে প্রধান অতিথি ছিলেন ব্রিটিশ হাউস অব লর্ডসের সদস্য ব্যারোনেস মঞ্জিলা পলা উদ্দিন এবং বিশেষ অতিথি ছিলেন ড্যাফোডিল পরিবারের চেয়ারম্যান মো. সবুর খান। এ ছাড়া অনেক সম্মানিত অতিথি যোগ দিয়েছিলেন চমৎকার সেই আয়োজনে।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ‘নন রেসিডেন্স ড্যাফোডিল অ্যালামনাই’ লন্ডন চ্যাপটার নামে তখন একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা হয়। নর্থ আমেরিকার ক্ষেত্রেও এমন প্ল্যাটফর্ম তৈরি করা হচ্ছে। যার মাধ্যমে প্রবাসে থাকা সাবেকরা পরস্পরের সঙ্গে সংযুক্ত থাকতে পারবে, নিজেদের আইডিয়া শেয়ার করতে পারবে, মন্তব্য, পরামর্শ, অভিযোগ, অনুযোগ, সাহায্য-সহযোগিতা করার সুযোগ পাবে। লন্ডনের সেই আয়োজন তৈরি করেছিল ভবিষ্যত চলার পথটিকে। সেই ধারাবাহিকতায় এবার নর্থ আমেরিকায় হতে যাচ্ছে জমকালো মিলনমেলা।

উল্লেখ্য, ড্যাফোডিল পরিবারের প্রায় ৬০ হাজার প্রাক্তন শিক্ষার্থী বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নানা পর্যায়ে কর্মরত রয়েছেন। ড্যাফোডিল থেকে পাস করা প্রায় পাঁচ শতাধিক বিদেশী শিক্ষার্থী দেশের বাইরে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় কোম্পানীতে এবং তাদের নিজ নিজ দেশে বিচার বিভাগ, উপাচার্য, মন্ত্রী, প্রতিরক্ষা বিভাগসহ সরকারের গুরুত্বপূর্ণ পদে কর্মরত আছেন। ড্যাফোডিল থেকে পাস করা এলামনাইরা ‘নন-রেসিডেন্ট ড্যাফোডিল এলামনাই’ এর ব্যানারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রেখে চলছে।

Leave a Reply