শহর গড়ার সমাধান দিয়ে পুরস্কার

শহর গড়ার সমাধান দিয়ে পুরস্কার

  • ক্যাম্পাস ডেস্ক

প্রতিযোগিতার স্লোগান ছিল ‘আওয়ার সিটিস, আওয়ার সলিউশনস’—আমাদের সমাধানে গড়ে উঠবে আমাদের শহর। শুধু সমাধান দিয়েই ঘরে ফেরার সুযোগ ছিল না এই প্রতিযোগিতায়। সমাধানের ওপর পুরস্কৃতরা কাজ করবেন আগামী ছয় মাস। ‘আরবান ইনোভেশন চ্যালেঞ্জ’ নামের প্রতিযোগিতাটির এই ছিল বিশেষত্ব। আয়োজন করেছিল ব্র্যাক আরবান ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম এবং সোশ্যাল ইনোভেশন ল্যাব। ৭ মে ব্র্যাক সেন্টারে হয়ে গেল এই প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী পর্ব।

‘হেলথ’, ‘ট্রান্সপোর্ট’ এবং ‘এমপ্লয়মেন্ট’—এই তিনটি ক্যাটাগরিতে সাজানো হয়েছিল প্রতিযোগিতাটি। সুনির্দিষ্ট তিনটি সমস্যা সমাধানের কাজ। তিনটি বিভাগ থেকে পাঁচজনকে চূড়ান্তভাবে পুরস্কৃত করা হয়। আয়োজকদের পক্ষ থেকে কথা বললেন সোশ্যাল ইনোভেশন ল্যাবের কর্মকর্তা সালমান সাব্বাব। তিনি বলেন, গত অক্টোবরে আইডিয়া জমা দেওয়ার আহ্বান জানানোর পর থেকে তিনটি ক্যাটাগরিতে ৬০০টিরও বেশি আইডিয়া জমা পড়ে। দুই হাজারের বেশি তরুণের অংশগ্রহণ ছিল এই প্রতিযোগিতায়। বেশ কিছু ধাপ অতিক্রম করে তবেই নির্বাচন করা হয়েছে এই ‘নতুন শহরের রূপকারদের’। সবশেষে চূড়ান্ত পর্যায়ে ১৩টি ভাবনা বিচারকদের সামনে উপস্থাপন করা হয়। আর সেই উপস্থাপনার ভিত্তিতেই ঘোষিত হয় সেরা পাঁচ।

আমাদের শহরে পাবলিক টয়লেটের সংখ্যা খুব বেশি নয়। নারীদের জন্য ব্যবহারযোগ্য টয়লেটের সংখ্যা আরও কম। ঢাকার রেস্টুরেন্টগুলো ন্যূনতম অর্থের বিনিময়ে নারীদের টয়লেট ব্যবহারের সুযোগ করে দিতে পারে, এমন আইডিয়া দিয়েছিল ‘ভূমিজো’। দলটির সদস্যরা হলেন ফারহানা, ফৌজিয়া, মাসুদুল ও শ্যাম। ওদিকে উবারে যেমন ‘সার্চ’ করলেই নিকটবর্তী দূরত্বে গাড়ি পাওয়া যায়, তেমনি একই পদ্ধতিতে যদি রক্তদাতা খুঁজে পাওয়া যায়, এমন একটি সমাধান দিয়েছে ‘ব্লাডম্যান’ দলের শাহরিয়ার, নাইম, সাদমান ও নুসরাত। ‘হেলথ’ ক্যাটাগরিতে পুরস্কৃত হয়েছে এই দুটি দল। এ ছাড়া এই ক্যাটাগরিতে বিশেষ সম্মাননা পেয়েছে আইডেনটিটি ইনক্লুশন নামের একটি দল।

গাড়িচালকদের একটি সংস্থা গড়ে তোলার আইডিয়া দিয়েছেন ‘ড্রাইভার মেলা’ দলের তাইফুর, আসিফ ও প্রিয়াংকা। যে সংস্থার মাধ্যমে সহজেই গাড়িচালকদের দক্ষতা, পূর্ব অভিজ্ঞতা ইত্যাদি সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে। কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ঝরে পড়া তরুণদের জন্য আলাদা প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে সুদক্ষ টেকনিশিয়ান গড়ে তোলার আইডিয়া দিয়েছিল ‘সার্ভিসিং ক্যাম্পাস’ দল। এই দলের সদস্যরা হলেন সাগর, আল আমিন, তাসফিয়া ও সানজিদুল। ‘এমপ্লয়মেন্ট’ বিভাগে এই দুটি দল পুরস্কার জিতেছে।

সবশেষে ‘ট্রান্সপোর্ট’ ক্যাটাগরিতে পুরস্কৃত হয়েছেন শাফিন, নাবিল, আল আমিন ও সানীলের দল ‘আমার বাইক’। ঢাকা শহরে ট্যাক্সির মতো কাজ করবে মোটরসাইকেল, বাঁচবে সময়, বাঁচবে জ্যাম, এমনই এক ধারণার ওপর কাজ করছেন তাঁরা। পাঁচটি দল তাদের ভাবনা কাজে লাগানোর জন্য ব্র্যাক থেকে পাচ্ছে পাঁচ লাখ টাকা। তা দিয়েই আগামী ছয় মাস এই দলগুলো শহর বদলে দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করবে।favicon59-4

Leave a Reply