কাজে লাগান অখণ্ড অবসর

কাজে লাগান অখণ্ড অবসর

  • ক্যারিয়ার ডেস্ক

লেখাপড়ার চাপে দম ফেলার ফুরসত না পাওয়া শিক্ষার্থীদের জন্য বছর শেষের এই সময়টা বেশ সুখকরই বটে। পরীক্ষার পরের সময়টিতে আনন্দের বাঁধভাঙা জোয়ারে গা ভাসিয়ে দেয় অনেকেই। তবে এই আনন্দের সঙ্গে যদি থাকে গঠনমূলক কোনো কিছু করার মানসিকতা, তাহলে অবসরটা নিজের জন্য দারুণ কল্যাণকর হয়ে ওঠে!

বই পড়ার আনন্দের তুলনা নেই। কে জানে সত্যজিতের ‘প্রফেসর শম্ভু’ পড়ে বিজ্ঞানবিমুখ কোনো শিক্ষার্থীর মনে জাগতে পারে বিজ্ঞানী হওয়ার বাসনা অথবা অন্যকোনো বইয়ের কালজয়ী কোনো চরিত্র অনুপ্রাণিত করতে পারে ভালো কোনো কাজে ঝাঁপিয়ে পড়তে। অখণ্ড অবসরে বই-ই হতে পারে সবচেয়ে ভালো সঙ্গী। এছাড়াও অবসরে করার আছে অনেক কিছু।

বিজ্ঞানের এ যুগে কম্পিউটার জানা অপরিহার্য হয়ে উঠেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাসাইনমেন্ট তৈরি থেকে শুরু করে চাকরি—সব জায়গায় কম্পিউটার জানাটা হয়ে পড়ছে অত্যন্ত জরুরি। এ অবসরে কম্পিউটারের বিশদ না জানলেও অন্তত মাইক্রোসফট ওয়ার্ড, মাইক্রোসফট এক্সেল ও মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্টের কাজ শিখে রাখাটা কঠিন কিছু নয় নিশ্চয়ই। গান শুনতে, ছবি দেখতে, ফটোগ্রাফি করতে পছন্দ করেন অনেকেই। ভালো গান, ভালো ছবি যেমন বিনোদন দেবে; তেমনি তৈরি করে সুন্দর রুচিবোধ।

যাদের ফটোগ্রাফির শখ আছে তাদের ফটোগ্রাফি শেখার জন্য এটিই হতে পারে শ্রেষ্ঠ সময়। ফটোগ্রাফি শেখার জন্য গড়ে উঠেছে বেশকিছু প্রতিষ্ঠান। এসব প্রতিষ্ঠান থেকেও করে নেওয়া যায় ৩ থেকে ৬ মাসের স্বল্পমেয়াদি কোর্স। এ ছাড়াও আছে  সংগীতচর্চার অন্যতম অনুষঙ্গ গিটার, কিবোর্ড, ড্রাম শেখার সুযোগ। গিটারে টুংটাং করতে ভালোবাসে কিন্তু বাবা-মার বকুনির জন্য হয়ে ওঠে না। পরীক্ষার পরের সময়টি সংগীত ও বাদ্যযন্ত্র শেখা এবং বাজানোর জন্য হতে পারে আদর্শ সময়। নতুন কোনো জায়গায় ঘুরতে যাওয়াও হতে পারে সঠিক সিদ্ধান্ত।

শুধু চাকরির বাজারই নয়; যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হলে, নিজেকে অন্যদের চোখে একটু ব্যতিক্রমভাবে উপস্থাপন করতে চাইলে, নিজের ব্যক্তিত্বকে আরেকটু ভালোভাবে ফুটিয়ে তুলতে হলে, নিজের প্রয়োজন কিংবা স্বার্থ যাই বলি না কেন, ইংরেজিটা শিখতেই হবে। আর এই প্রস্তুতিটা নিতে হবে এখন, এ মুহূর্ত থেকেই। আর এ ভাষাটা ভালোভাবে শেখার জন্য আমাদের দেশে বেশ কয়েকটি উন্নতমানের প্রতিষ্ঠান রয়েছে। স্পোকেন, আইইএলটিএস কোর্স করে রাখলে পরবর্তী সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিসহ বিদেশে পড়তে যাওয়ার ক্ষেত্রেও কাজে লাগবে। শুধু এসব কেন, বুদ্ধি করে বের করে ফেলুন নতুন কিছু করার আইডিয়া—যে কাজ করে আনন্দে কাটবে আপনার অবসর। এর পাশাপাশি অন্যান্য ভাষার প্রতি যাদের দুর্বার আকর্ষণ রয়েছে, সেই ভাষার উপরেও প্রাথমিকভাবে একটি শর্ট কোর্স করে নিতে পারেন। এজন্য যোগাযোগ করতে পারেন আলিয়ঁস ফ্রঁসেস, গ্যেটে ইনস্টিটিউট, জার্মান কালচারাল সেন্টারসহ বেশ কয়েকটি ভালোমানের প্রতিষ্ঠানে।

মিডিয়া সম্পর্কে যাদের আগ্রহ রয়েছে, তারা এ সময়টুকুকে কাজে লাগিয়ে করতে পারেন এ বিষয়ক কিছু কোর্স। সাংবাদিকতা, সংবাদ পাঠ, উপস্থাপনা ও অভিনয় শেখার জন্য আমাদের দেশে এরমধ্যেই গড়ে উঠেছে বেশকিছু ভালোমানের প্রতিষ্ঠান। অবসরে শিখে নিতে পারেন হোটেল ম্যানেজমেন্ট কোর্স। ছবি তুলতে যাদের ভালো লাগে, ছোটবেলা থেকেই ক্যামেরার সঙ্গে সখ্য খুব, কিন্তু এ বিষয়ে তেমন কোনো প্রশিক্ষণ নেই বিধায় ভালোমানের ছবি তুলতে পারছেন না; তারা এই সুযোগে করে নিতে পারেন ফটোগ্রাফি কোর্স। রংতুলি নিয়ে নাড়াচাড়া করতে যাদের ভালোলাগে, তারাও বসে না থেকে আঁকাআঁকির ওপর একটি কোর্স করতে পারেন। এছাড়া হস্তশিল্প, ব্লক-বাটিক, ক্রিস্টাল মোম তৈরি ইত্যাদি বিষয়েও প্রশিক্ষণ নিতে পারেন। এজন্য যখনই সময় পাওয়া যায়; তখনই সেই সময়টুকুকে হেলা-ফেলায় নষ্ট না করে কোনো সৃজনশীল কাজে লাগানোর চেষ্টা করতে হবে। কোনোভাবেই সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগা যাবে না।favicon59-4

Leave a Reply