পেশা যখন ব্র্র্যান্ড এক্সিকিউটিভ

পেশা যখন ব্র্র্যান্ড এক্সিকিউটিভ

  • ক্যারিয়ার ডেস্ক

যে ধরনের পেশায় সৃজনশীলতা নামের অসাধারণ গুণটির বিকল্প নেই, তেমনই এক পেশা- ব্র্যান্ডিং। এই পেশা আপনার ভেতরের সৃজনশীলতাকে বারবার উস্কে দেয়। পণ্যের ভালো মান নিশ্চিত করলেই বাজারে পণ্যটি জনপ্রিয়তা অর্জন করবে_ এমন ধারণা সময়ের স্র্রোতে পাল্টে গেছে। পাল্টানোর এ প্রতিযোগিতায় যে কোনো পণ্যের ব্র্যান্ডিং কতটা গুরুত্বপূর্ণ, তা যে কেউ আঁচ করতে পারেন বড় কোম্পানির পণ্যে চোখ রাখলে। একটু চোখ মেলে বাজারে তাকালে দেখবেন, ব্র্যান্ডিংয়ের মাধ্যমেই এখন পণ্য পরিচিত করে তোলা হচ্ছে। এটা আসলে সময়েরই চাহিদা। এই ব্র্যান্ডিং বলতে বাজারে পরিচিত অন্যান্য পণ্যের ভিড়ে নতুন একটি পণ্য পরিচিত করে তোলাকেই বোঝায়।

বাজার নিশ্চিত

যে কোনো প্রতিষ্ঠানের উৎপাদিত পণ্যগুলো বাজারে জনপ্রিয় করে তুলতে যারা কাজ করেন, তাদেরই বলা হয় ব্র্যান্ড এক্সিকিউটিভ। বড় প্রতিষ্ঠানগুলো পণ্য যথাযথভাবে জনসাধারণের কাছে পৌঁছে দিতে ব্র্যান্ড ডিভিশন নামে কাজের বড় একটি জায়গা রাখে। এই ব্র্যান্ড ডিভিশনের জনবলই প্রতিযোগিতামূলক বাজারে অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের পণ্যের সঙ্গে প্রতিযোগিতা দিয়ে নিজ প্রতিষ্ঠানের উৎপাদিত অথবা বাজারজাতকৃত পণ্যের বাজার নিশ্চিত করে। শুধু তাই নয়, পণ্যের সঠিক বাজারজাতকরণের লক্ষ্যে সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা প্রণয়ন থেকে শুরু করে তা বাস্তবায়নের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে প্রতিষ্ঠানের ব্র্যান্ড ডিভিশন তথা ব্র্যান্ড এক্সিকিউটিভ।

যেভাবে শুরু
যে কোনো প্রতিষ্ঠানই এ পেশায় লোক নিয়োগ দেওয়ার আগে ব্যক্তির দক্ষতা এবং যোগ্যতায় যথাযথ গুরুত্ব দেয়। কেননা কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানের যে কোনো নতুন পণ্য উৎপাদন পরিকল্পনা থেকে তা যথাযথ বাজারজাতকরণ পর্যন্ত সবই করতে হয় এই ব্র্যান্ড ডিভিশনকে। ব্র্যান্ড কর্মকর্তারা নতুন পণ্য উৎপাদন পরিকল্পনা, ক্রেতার চাহিদা, বাজারে পণ্যের সম্ভাব্যতা যাচাই, পণ্যের আকার ও মোড়কের পরিকল্পনা, বাজারজাতের কলাকৌশল নির্ধারণ থেকে শুরু করে কাদের জন্য এ পণ্য এবং সেই হিসেবে পণ্যের দামও নির্ধারণ করে দেন। তাছাড়া পণ্য সম্পর্কে ক্রেতার আগ্রহ এবং কোন সময়টায় এটি বাজারে ছাড়লে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে পারবে—তাও তাদের মাথায় রাখতে হয়। তারপর উৎপাদিত পণ্যটির বাজারজাত কীভাবে হবে, তা নির্ধারণের মাধ্যমে মার্কেটিং এবং সেলস টিমকে সে অনুযায়ী দিকনির্দেশনা দিতে হয়। পাশাপাশি ক্রেতার চাহিদার কথা মাথায় রেখে সরাসরি বাজার পরিদর্শনও করতে হয় ব্র্যান্ড এক্সিকিউটিভদের।

পদোন্নতি
খুব সহজেই পদোন্নতি পাওয়া যায় এ পেশায়। যে কোনো প্রতিষ্ঠানের পণ্য বাজারজাতকরণে অগ্রণী ভূমিকা পালনকারী ব্র্যান্ড ডিভিশনে শুরুতে ব্র্যান্ড এক্সিকিউটিভ এবং ট্রেইনি অফিসার হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। তারপর যোগ্যতা এবং কর্মদক্ষতা দেখিয়ে দুই থেকে তিন বছরের মধ্যে সিনিয়র ব্র্যান্ড এক্সিকিউটিভ এবং অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার ও ম্যানেজার পদে পদোন্নতি লাভ করা সম্ভব।

যোগ্যতা
সাধারণত ব্র্যান্ড এক্সিকিউটিভ হিসেবে চাইলে স্নাতক ও মাস্টার্স শেষ করেই ক্যারিয়ার শুরু করা যায়। তবে এর সঙ্গে মার্কেটিং জড়িয়ে থাকায় এখানে আসার আগে বিবিএ ও এমবিএ পাস করে এলেই ভালো করা যায় সহজে। এখানে শিক্ষাগত যোগ্যতার পাশাপাশি থাকতে হবে আত্মবিশ্বাস এবং আপনাকে সৃজনশীল চিন্তার অধিকারীও হতে হবে। পরিকল্পনা প্রণয়ন ও সেটির সঠিক বাস্তবায়নের দক্ষতা এখানে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পরিশ্রমকে আপনার অতিরিক্ত যোগ্যতা ধরা হয়ে থাকে এ পেশায়। আপনি পরিশ্রমী হলে নিশ্চয়ই তা কাজে লাগানোর পথটা খুঁজছেন!

নিয়োগ ও বেতন-ভাতা
পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান বা পণ্য বাজারজাতকারী প্রতিষ্ঠানগুলো ব্র্যান্ড বিভাগে শুরুতে সাধারণত ব্র্যান্ড এক্সিকিউটিভ অথবা ট্রেইনি অফিসার হিসেবে লোক নিয়োগ দেয়। প্রতিষ্ঠানের আকার এবং ব্যবসা অনুসারে শুরুতেই ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা বেতন ধরা হয়। পাশাপাশি থাকে প্রতিষ্ঠান নির্ধারিত অন্য সুযোগ-সুবিধা। কাজে দক্ষতা দেখাতে পারলে এক থেকে দুই বছরের মধ্যে বেতন বেড়ে ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা ছাড়িয়ে যাওয়া সম্ভব। এখানেই শেষ নয়, দুই থেকে তিন বছরের মাথায় বেতন ৭০ থেকে ৮০ হাজারে গিয়ে পৌঁছানো সম্ভব। মাল্টিন্যাশনাল বা বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানগুলোর বেতন কাঠামো আরও আকাশছোঁয়া।

কাজে দক্ষতা এবং একাগ্রতা থাকলে বড় প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে যে কোনো সময় ডাক পেতে পারেন। সেসব প্রতিষ্ঠানে লাখের ওপর ধরা হবে আপনার বেতন। কাজের বিনিময়ে সেই সুযোগের প্রহর গুনতেই পারেন।

সৃজনশীলতায় শান
ব্র্যান্ড এক্সিকিউটিভ হিসেবেই যদি আপনি ক্যারিয়ার গড়তে চান, তবে নিজের ভেতরের সৃজনশীলতাকে উস্কে দিন। কারণ এই পেশায় সৃজনশীলতা নামের অসাধারণ গুণটার বিকল্প নেই। প্রতিনিয়ত সৃজনশীল কাজে থেকে এই গুণ আরও ঝালিয়ে নিতে পারেন। বাজারের দক্ষতার পাশাপাশি নিজের মেধা ও সৃজনশীলতা দিয়ে আপনার কোম্পানির পণ্যের সর্বোচ্চ প্রচারণা চালাতে পারেন।

শুধু তাই নয়, প্রচার কৌশল দিয়ে বাজার এবং নির্দিষ্ট কাস্টমারের কাছে পণ্যকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলতে পারেন আপনি।

প্রচার কৌশল
আপনি নিজের মেধা দিয়েই প্রচারের কৌশল ঠিক করে নেবেন। অন্যদের মতো নির্দিষ্ট ট্র্যাকে থেকে প্রচার চালালে ভালোভাবে নাও এগোতে পারেন। এ ক্ষেত্রে পণ্য এবং এর কাস্টমারের কথা মাথায় রেখে সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপন যেমন দিতে পারেন, তেমনি টেলিভিশন, রেডিওর শরণাপন্নও হতে পারেন। এ ছাড়া অনলাইনের কথাটাও নিশ্চয়ই আপনার মাথায় কাজ করে? সেই ক্ষেত্রে ফেসবুক, টুইটার থেকে শুরু করে ব্লগের মাধ্যমেও এর প্রচার চালাতে পারেন।

আপনি কোন পদ্ধতিতে পণ্যের প্রচার করবেন এবং আপনার টার্গেট কাস্টমারের কাছে পৌঁছবেন, তা আপনাকেই ঠিক করতে হবে। পাশাপাশি তাদের মনস্তত্ত্বটাও মাথায় রাখুন। সব ঠিকঠাক থাকলে নেমে পড়ূন কাজে। সাফল্য আসবেই।favicon59-4

Leave a Reply