ইন্টারভিউ বোর্ডের ৫ মিথ্যা

ইন্টারভিউ বোর্ডের ৫ মিথ্যা

  • ক্যারিয়ার ডেস্ক

চাকরিদাতারা সবসময় কম অর্থে সেরা সেবাটা নিতে চাইবে এটাই স্বাভাবিক। এজন্য কোনো পদে যখন কাউকে নেওয়ার কথা পরিকল্পনা করা হয় তখন সে পদের সম্ভাব্য প্রার্থীদের বেতন সীমা সর্বনিম্ন থেকে সর্বোচ্চ পর্যন্ত মাথায় রাখে। চাকরিদাতারা প্রথমে সেরা প্রার্থীটা পেতে চায় তাদের প্রতিষ্ঠানের জন্য। আর তার কাছ থেকে কীভাবে সেরা সুবিধাগুলো আদায় করে নিতে পারবে এ নিয়ে ইন্টারভিউতে বাজিয়ে দেখে। চাকরিদাতারা ইন্টারভিউতে কিছু মিথ্যা বলে। আপনি স্মার্ট হলে সেটা ধরে ফেলতে পারবেন। সে পাঁচটি মিথ্যা হচ্ছে:


১. এ চাকরির জন্য কেমন অর্থ দেওয়া হতে পারে এটা এখনো নিশ্চিত নয়।

২. এ কাজটি করতে আপনার ওপর চাপ পড়তে পারে। শিগগিরই আপনাকে সহায়তা করার জন্য নতুন কাউকে নেওয়া হবে।

৩. বেতন হয়তো বেশি না কিন্তু আপনার সুবিধা অনেক।

৪. আগামী সপ্তাহের শুরুতেই হয়তো আপনাকে জানাতে পারবো।

৫. আমাদের মনে হচ্ছে প্রথমে যেমনটা ভেবেছিলাম এখন তেমনটা বাজেট আমাদের হাতে নেই। শুরুতে হয়তো আপনাকে একটু নিচের পদে কাজ করতে হবে। কিন্তু ভয় নেই, শিগগিরই আপনাকে উপরে নিয়ে আসা হবে।

চাকরির ইন্টারভিউতে যাওয়ার আগে এই বিষয়গুলো মাথায় রাখবেন। চাকরিদাতারা আপনার সঙ্গে বিভিন্ন খেলা খেলতে পারেন। এজন্য আগে থেকে প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হবে।

উপরের মিথ্যাগুলোর জবাবে আপনাকে কয়েকটা বিষয় সম্পর্কে আগে থেকেই জানতে হবে।

প্রথমত, কোনো চাকরিদাতাই পদ ও সে পদের জন্য কত টাকা খরচ করতে রাজি সেটা নিশ্চিত না হয়ে চাকরির সার্কুলার দেন না বা কারো সাথে ইন্টারভিউতে বসেন না। প্রতিষ্ঠানের একান্ত প্রয়োজন আছে বলেই নতুন প্রার্থীকে খোঁজা হয়। এবং সে পদের জন্য কতটুকু বেতন দিতে রাজি সেটাও নির্ধারণ করা থাকে।

দ্বিতীয়ত, নতুন কাউকে নেওয়ার কথা বলে আসলে আপনাকে দীর্ঘদিন খাটিয়ে নেওয়ার কথা ভাবছেন আর কি। মানে দুজনের কাজ একজনকে দিয়ে করিয়ে নিতে পারলে তো প্রতিষ্ঠানের অনেক লাভ, তাই না!

তৃতীয়ত, অনেক সুবিধার কথা বলে বেতন কম রাখার চেষ্টা আরকি। সুবিধা যতই হউক আপনার বেতন কত আসছে সেটা খেয়াল রাখবেন।

চতুর্থত, আগামী সপ্তাহ নয়, আপনার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়তো নেওয়া হয়ে গেছে এরই মধ্যে।

পঞ্চমত, আপনার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর আপনাকে নিয়ে দর কষাকষি চলবে কিছুক্ষণ এই আর কি। আপনাকে যত অল্প অর্থে রাখা যায় প্রতিষ্ঠানের ততই লাভ।

চাকরির ইন্টারভিউতে সে পাঁচটি মিথ্যার সঙ্গে পরিচয় হলে সমাধানের কথা মাথায় রাখবেন এবং নিজেকে প্রস্তুত রাখবেন। যে কোনা পরিস্থিতিতে খাপ খাইয়ে নিতে পারার সক্ষমতা কিন্তু একটি বড় গুণ। সেটা শুরু হোক একেবারে চাকরির ইন্টারভিউ বোর্ড থেকে।

সূত্র: ফোর্বসfavicon59-4

Leave a Reply