ক্যারিয়ার গড়ি নৌবাহিনীতে

ক্যারিয়ার গড়ি নৌবাহিনীতে

  • ক্যারিয়ার ডেস্ক

সম্প্রতি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী। বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী ২০১৯-এ ব্যাচে অফিসার ক্যাডেট হিসেবে জাহাজের ক্যাপ্টেন, এয়ারক্রাফট পাইলট, নৌ-কমান্ডো ও সাবমেরিনার (অফিসার ক্যাডেট) পদে নিয়োগ দেবে বাংলাদেশ নৌবাহিনী। এ বছরের এইচএসসি পরীক্ষার্থীরাও আবেদন করতে পারবেন। ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে আবেদনের কার্যক্রম, চলবে আগামি ৩০ মে, ২০১৮ পর্যন্ত।

আবেদনের যোগ্যতা

উল্লিখিত পদগুলোতে আবেদন করতে হলে আগ্রহী প্রার্থীদের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। জিপিএ থাকতে হবে ন্যূনতম ৪.৫০। উভয় পরীক্ষায় গণিত ও পদার্থবিজ্ঞানে থাকতে হবে ন্যূনতম জিপিএ ৪.০০। ইংরেজি মাধ্যমের গণিত, পদার্থবিজ্ঞানসহ ও-লেভেল উত্তীর্ণদের ৬টি বিষয়ের মধ্যে ৩টিতে ন্যূনতম এ গ্রেড ও ২টিতে বি গ্রেড থাকতে হবে। আর এ-লেভেল উত্তীর্ণদের ২টি বিষয়ে বি গ্রেড থাকতে হবে।
সশস্ত্র বাহিনীতে কর্মরত প্রার্থীদের নৌবাহিনীর উচ্চমান পরীক্ষা (এইচইটি) বা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। সরবরাহ শাখায় আবেদন করতে পারবেন ব্যবসায় শিক্ষায় মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পাস প্রার্থীরা। জিপিএ লাগবে কমপক্ষে ৪.৫০। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় হিসাববিজ্ঞান এবং ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ে থাকতে হবে জিপিএ কমপক্ষে ৪.০০। আবেদন করতে পারবেন ২০১৮ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীরাও। পুরুষ প্রার্থীদের ক্ষেত্রে দৈহিক উচ্চতা থাকতে হবে কমপক্ষে ১৬২.৫ সেন্টিমিটার বা ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি। ন্যূনতম ওজন হতে হবে ৫০ কেজি (উচ্চতা ও বয়স অনুসারে সশস্ত্র বাহিনীর জন্য নির্ধারিত স্কেল অনুযায়ী)।

শারিরীক যোগ্যতা

শিক্ষাগত যোগ্যতার পাশাপাশি প্রার্থীদের উচ্চতা কমপক্ষে ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি, ওজন ৫০ কেজি, বুকের মাপ স্বাভাবিক অবস্থায় ৩০ ইঞ্চি এবং প্রসারিত অবস্থায় ৩২ ইঞ্চি হতে হবে।

বয়সসীমা

আবেদনের জন্য আগামী ১ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে আবেদনকারীর বয়স হতে হবে ১৬.৫ বছর থেকে ২১ বছরের মধ্যে, তবে সশস্ত্র বাহিনীতে কর্মরত প্রার্থীদের ক্ষেত্রে বয়স হতে হবে ১৮ থেকে ২৫ বছরের মধ্যে। আবেদনের জন্য প্রার্থীকে অবশ্যই বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে। বয়স সংক্রান্ত বিষয়ে কোনো প্রকার এফিডেভিট গ্রহণযোগ্য নয় বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

আবেদন পদ্ধতি

আবেদন সংক্রান্ত বিস্তারিত জানা যাবে www.joinnavy.mil.bd -এ ওয়েবসাইটের মাধ্যমে।  আগ্রহী প্রার্থীরা  নির্ধারিত ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে হোম পেজের ডান দিকে অ্যাপ্লাই নাউ-এ প্রবেশ করলে আবেদনের নির্দেশিকা দেখতে পাবেন। অবেদনের শেষ পর্যায়ে অনলাইন ব্যাংকিং, মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে পেমেন্ট সম্পন্ন করতে পারবেন। পেমেন্ট সংক্রান্ত বিষয়ে প্রার্থীগণ যেকোন ব্যাংকের ক্রেডিট/ডেভিট কার্ডসহ অনলাইন লেনদেন সুবিধা ভোগ করতে পারবেন।  এক্ষেত্রে প্রার্থীগণকে  সার্ভিস চার্জ ব্যতীত ৭০০ টাকা অফেরেযাগ্য হিসেবে আবেদন ফি প্রদান করতে হবে। আবেদন প্রক্রিয়াতেই ওয়েবসাইটে বর্ণিত পদ্ধতি অনুসরণ  করে আবেদন ফি প্রদান করা যাবে। আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার পর সঙ্গে সঙ্গে প্রার্থীকে প্রাথমিক সাক্ষাত্কারের জন্য কল-আপ লেটারসহ একটি ডকুমেন্ট প্রদান করা হবে।  এই ডকুমেন্টটি প্রার্থীদের ডাউনলোড করে প্রিন্ট নিতে হবে। সাক্ষাত্কারের সময় প্রার্থীগণদের  প্রিন্টকৃত ডকুমেন্টসসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সঙ্গে আনতে হবে। এ ছাড়াও চাইলে যোগাযোগ করতে পারেন এ ঠিকানায়- ‘পরিচালক, পার্সোনাল সার্ভিসেস পরিদপ্তর, নৌবাহিনী সদর দপ্তর, বনানী, ঢাকা’। ফোন করতে পারেন এ নম্বরে- ০২-৯৮৩৬১৪১-৯, বর্ধিত-২২১৫।

যে কাগজপত্র লাগবে

ম্যানুয়ালি পূরণকৃত আবেদনপত্রের সঙ্গে সংযুক্তি হিসেবে দিতে হবে বিজ্ঞপ্তি উল্লিখিত কাগজপত্র। নির্দেশনানুযায়ী পূরণকৃত আবেদনপত্রটি নৌ সদরে পাঠাতে হবে। প্রয়োজনীয় কগজপত্রের ফটোকপিসহ  কাগজপত্রের আসল কপি প্রাথমিক সাক্ষাত্কারের সময় সঙ্গে আনতে হবে। অনলাইনে আবেদনের ক্ষেত্রে ফরমের প্রিন্ট কপির সঙ্গে কাগজপত্র সংযোজন করে প্রাথমিক সাক্ষাত্কারের সময় জমা দিতে হবে। লাগবে ১ কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি, সব শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র ও মার্কশিটের কপি, ইউপি চেয়ারম্যান/ পৌরসভার মেয়র/ওয়ার্ড কাউন্সিলরের দেওয়া নাগরিকত্বের সনদ ও প্রথম শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তার দেওয়া চারিত্রিক সনদপত্রের কপি ও ব্যাংক পে-অর্ডার।

নির্বাচন প্রক্রিয়া

বাংলাদেশ নৌবাহিনীর নির্বাচন প্রক্রিয়া ৫টি ধাপে হয়ে থাকে। প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা, প্রাথমিক সাক্ষাত্কার, লিখিত পরীক্ষা, আইএসএসবি ও চূড়ান্ত স্বাস্থ্য পরীক্ষা।

পরীক্ষার ধরন

আবেদনকারীকে বিভিন্ন পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। ঢাকা, চট্টগ্রাম ও খুলনা কেন্দ্রে নেয়া হবে প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও প্রাথমিক সাক্ষাত্কার। এই কার্যক্রমটি অনুষ্ঠিত হওয়ার তারিখ আগামী ৪ থেকে ৭ জুন, ২০১৮ (পরিবর্তনযোগ্য)। প্রাথমিক সাক্ষাত্কার শেয়ে উত্তীর্ণরা বসবে বুদ্ধিমত্তা, ইংরেজি ও সাধারণ জ্ঞান বিষয়ে উল্লিখিত কেন্দ্রে লিখিত পরীক্ষায়। এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৮ জুন (পরিবর্তনযোগ্য)। এছাড়াও নির্দিষ্ট বিষয়ের ওপর বাংলা ও ইংরেজিতে দলগত আলোচনা, বক্তৃতা, শারীরিক সামর্থের পরীক্ষায়। দলগত পরীক্ষার জন্য সাত-আটজনকে নিয়ে গঠন করা হয় আলাদা দল। যাচাই করা হয় দলগত কাজের ক্ষমতা ও শারীরিক দক্ষতা। দলগত আলোচনা পর্বে বাংলা ও ইংরেজিতে একটি নির্দিষ্ট বিষয়ের ওপর আলোচনা করতে হয়। একটি দলকে চারটি বাধা পর্যায়ক্রমে পার হয়ে এগিয়ে যেতে হয় প্রগ্রেসিভ গ্রপ টাস্ক পর্বে। অর্ধ দলগত কাজ (এইচজিটি) গঠিত হয় তিন-চারজন প্রার্থীকে নিয়ে। এখানে একটি বাধা অতিক্রম করতে হয়। প্রার্থীদের ইংরেজিতে উপস্থিত বক্তৃতায় অংশ নিতে হয়। অংশ নিতে হয় আটটি শারীরিক পরীক্ষায়। এগুলো হলো দীর্ঘ লাফ, জিগজ্যাগ, ওয়াল জাম্প, উচ্চ লাফ, বার্মা সেতু, টারজান সুইং, রশি আরোহণ ও ঝুলন্ত কাঠের গুঁড়ি। এছাড়াও প্রার্থীর সাহস, আত্মবিশ্বাস, তাত্ক্ষণিক বুদ্ধি ইত্যাদি বিষয় পর্যবেক্ষণ করা হয় এতে। চার দিনের পরীক্ষার শেষের দিন  বিকেলে  জানিয়ে দেয়া হবে ফলাফল।

প্রশিক্ষণ ও কমিশন

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী চূড়ান্তভাবে বাছাইকৃতরা প্রথমে বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমিতে ১০ সপ্তাহ প্রশিক্ষণসহ বাংলাদেশ নেভাল একাডেমিতে অফিসার ক্যাডেট হিসেবে ২৪ মাস ও মিডশিপম্যান হিসেবে ১২ মাস প্রশিক্ষণসহ তিন বছরমেয়াদি প্রশিক্ষণ নেবেন। এরপর তাদের নৌবাহিনীতে সাব-লেফটেন্যান্ট পদে নিয়মিত কমিশন দেওয়া হবে।

বেতন ও সুযোগ-সুবিধা

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী চুড়ান্তভাবে নিয়োগ প্রাপ্তরা অফিসার ক্যাডেটরা সশস্ত্র বাহিনীর বেতনক্রম অনুযায়ী বেতন ও ভাতা পাবেন। রয়েছে দেশে-বিদেশে সরকারি খরচে উচ্চতর প্রশিক্ষণ, জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে যোগদান, বিনামূল্যে চিকিত্সা, বাসস্থানসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা। উল্লেখ্য, আবেদন সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তিটি http://www.joinnavy.mil.bd এই ওয়েব সাইটে প্রবেশ করলে পাওয়া যাবে। 

Leave a Reply