রুটিন মেনে কাজ করুন

রুটিন মেনে কাজ করুন

  • ক্যারিয়ার ডেস্ক

সকালকে যদি একটা রুটিনে নিয়ে আসতে পারেন এবং সেই রুটিনে চোখ রেখে যদি কর্মদিবস শুরু করতে পারেন, তবে দিনটা ভালোই কেটে যাবে আপনার। গান আর কফির সঙ্গে পত্রিকা কিংবা মেইল চেক দিয়ে সকাল শুরুর অভ্যাস থাকলে সেভাবেই আগান। মিষ্টি সকাল দিনটাকেও মধুময় করে তুলবে।

সময় ধরুন : যে কাজটা যে সময়ে করতে চান, সে সময়টা ধরার চেষ্টা করুন। ধরুন অফিস টাইমটাও। মাঝে মধ্যে বড় কোনো সমস্যা না হলে সময়মতো সব করার চেষ্টা করুন। সময় ধরে সকালের অফিস টাইমটা সবার আগে ঠিকঠাক ধরতে পারলে দিনটা আরও আপন হতে শুরু করবে আপনার।

বড় করে শ্বাস : আন্তর্জাতিক ব্যবসায়ী বক্তা হিসেবে খ্যাত মাইকেল কের বলেন, ‘কোনো কাজে মন না বসলে একটু স্থির হয়ে বসুন, তারপর ইয়া বড় করে একটা শ্বাস নিন। তারপর কাজে মন দিন। এতে কাজটা চলে আসবে আপনার নাগালে!’

মাত্র পাঁচ মিনিট : নিঃশ্বাসে কাজ না হলে পাঁচ মিনিট সময় নিন একান্ত নিজের জন্য। এর ভেতরও নিঃশ্বাসের প্র্যাকটিস চালিয়ে যেতে পারেন। তা ছাড়া এই পাঁচ মিনিটে নিজেকে ঠিক করে নিন পুরো দিনের জন্য।

শেষ বিকেলের আলো : ধোয়া-মোছা পরিস্কার একটা স্লেটের মতো দিনটা শুরু করুন। শেষ বিকেলে এসে আপনার খড়িমাটি শেষ। এবার হিসাব মিলিয়ে নিন ঠাণ্ডা মাথায়। এতে নিজেকে অন্য দিনের জন্য আরও সজীব করে তুলুন।

তিরিক্ষি মেজাজে না : অযোগ্যদের মতো মুড নিতে যাবেন না। নিজের কাজের পাশাপাশি তিরিক্ষি মেজাজটাকে কন্ট্রোলে রাখুন। এতে নিজেকে খুব সচেতন করে তুলতে পারবেন। এতে আপনার মনোভাবটাও থাকবে ইতিবাচক। ঠিক সকালের গান কানে আর কফিতে চুমুক দেওয়ার মতো।

সংগঠিত পথে : দিনের প্রথম কার্যদিবসটাই গুরুত্বপূর্ণ। এই সময়টাকে ভালো করে কাজে ব্যয় করার চেষ্টা করুন। গুরুত্বপূর্ণ কাজ এই সময়ে শেষ করুন। এতে আপনার কর্মদিবসটা সুসংগঠিত হবে।

কুশল বিনিময় : অফিসে ঢুকে পাঁচ থেকে ১০ মিনিট সময় নিয়ে সহকর্মীদের সঙ্গে হাই-হ্যালো করে আসুন। এভাবে দিনটা শুরু করতে পারলে মনটাও ভালো থাকবে।

চেষ্টা করুন : রাতের তারার মতো অফিসে আপনি জেগে থাকুন। মরা মাছের মতো পড়ে থাকবেন না! কে কী করছে, কোন ফ্লোরে কী হচ্ছে- সব কানে আনার চেষ্টা করুন। তবে অবশ্যই ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে। প্রয়োজনে নিজে উপস্থিত হয়ে সমাধান ডেকে আনতে পারেন।

বিভ্রান্তিকে তুড়ি : যেভাবে আপনার কর্মক্ষেত্র সংগঠিত হয়, সেই পথে হাঁটুন। ডেস্ক পরিস্কার রাখুন। হতে পারে ডেস্কে একটা ছোট্ট টব তুলে দিতে পারেন। এতে সবুজে চোখ পড়লে মনটাই ফুরফুরে হয়ে যাবে আপনার। এ সবুজ আপনার বিভ্রান্তি তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিতে পারে।

সূত্র: সমকাল

Leave a Reply