‘কোটা’ সংস্কারের আর কত দেরি, পাঞ্জেরি ?

‘কোটা’ সংস্কারের আর কত দেরি, পাঞ্জেরি ?

  • কাজী আলিম-উজ-জামান

ছাত্রজীবন শেষ করে যাঁরা কর্মজীবনে প্রবেশ করতে যাচ্ছেন, তাঁদের কারও কাছে ‘কোটা’ স্বস্তির বিষয়। আবার কারও কাছে তা আতঙ্ক। কোটা এমন একটি স্পর্শকাতর বিষয়, যা নিয়ে আলোচনা করাটা কখনো কখনো বিব্রতকর। আবার এ নিয়ে কথা না বলাও একধরনের সুবিধাবাদিতা। এ দেশের তরুণসমাজ চায়, কোটাব্যবস্থা নিয়ে জোরদার আলোচনা হোক। সত্যিকারের একটা বিহিত হোক।

প্রশ্নটি যৌক্তিক। সরকারি চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে কোটাব্যবস্থা আর কত বছর থাকবে? কোন কোন ক্ষেত্রে কোটা থাকা উচিত, কতটা থাকা উচিত? যাঁরা একেবারেই কোটা পছন্দ করেন না, তাঁরা বলে থাকেন, যেহেতু আমাদের সংবিধানে সব নাগরিকের অধিকার সমান, তাহলে আবার কারও কারও বিশেষ অধিকার কেন?
আমাদের দেশে বিসিএসে নিয়োগে বর্তমানে ৫৫ শতাংশ কোটা সংরক্ষিত। এর মধ্যে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও তাঁদের নাতি-নাতনিদের জন্য ৩০ শতাংশ, নারী কোটা ১০ শতাংশ, জেলা কোটা ১০ শতাংশ এবং ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জন্য ৫ শতাংশ কোটা। এ ছাড়া প্রতিবন্ধীদের জন্য কোটা রয়েছে ১ শতাংশ, যা পূরণ করা হয় সাধারণত ওপরের যেকোনো একটি কোটা থেকে। অর্থাৎ কোনো কোটায় উপযুক্ত প্রার্থী পাওয়া না গেলে সেখান থেকে প্রতিবন্ধী কোটা পূরণ হয়।

042d7aae0553b6839b796d1dd54b31bb-597b2faf52052এ হিসাব থেকে বোঝা যাচ্ছে, এ দেশে যে মেধাবী তরুণ, যিনি কোনো কোটায় পড়েন না (জেলা কোটা ছাড়া), তাঁর চাকরি পাওয়ার সুযোগ ও সম্ভাবনা কম। সংখ্যায় তাঁরাই বেশি আর তাঁদের লড়াইটাও বেশি। দিন-বছর শেষে তাঁদের বঞ্চনাও বেশি।

খুবই দুঃখজনক যে এ দেশে সাধারণ মেধা কোটা থেকে সংরক্ষিত কোটা বেশি এবং তা বছরের পর বছর চলছে। কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবি নিয়ে বিস্তর আলোচনা হচ্ছে, কিন্তু কোনো সরকারই সাহস দেখাচ্ছে না, পাছে অজনপ্রিয় হয়!

কোটা কিন্তু এ অঞ্চলের সংস্কৃতিরই অংশ। ইংরেজ শাসনামলে পিছিয়ে পড়া দেশীয়দের জন্য চাকরিতে কিছু কোটা ছিল। প্রদেশভিত্তিক কোটাব্যবস্থা ছিল পাকিস্তান আমলেও, যদিও সেখানে বাঙালিদের জন্য ছিল কেবল বঞ্চনার গল্প। এরই ধারাবাহিকতায় স্বাধীন বাংলাদেশেও প্রবর্তিত হয় কোটাব্যবস্থা। মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের সন্তানদের জন্য কোটার ব্যবস্থা ছিল জাতির পক্ষ থেকে তাঁদের প্রতি ঋণস্বীকারের একটি উপায়। কিন্তু বলা হয়ে থাকে, ’৭৫-পরবর্তী সরকারগুলো মুক্তিযোদ্ধা কোটা সঠিকভাবে অনুসরণ করেনি। বরং মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের সন্তানদের অবহেলা করেছে।

সাম্প্রতিক সময়ে অনেক তরুণের সঙ্গে কথা বলে দেখেছি, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও নাতি-নাতনিদের জন্য ৩০ শতাংশ কোটা সংরক্ষণ নিয়েও কারও কারও আপত্তি রয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের সন্তানেরা কোটাসুবিধা পেতে পারেন, কিন্তু নাতি-নাতনিদের জন্য কেন? এই কোটার পক্ষেও কেউ কেউ অবশ্য আছেন।
আরও একটি আপত্তির জায়গা আছে। তা হলো মুক্তিযোদ্ধা কোটার অপব্যবহার ও ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা নিয়ে। সুযোগ-সুবিধা নেওয়ার বেলায় এই ‘চুক্তিযোদ্ধা’রা সিদ্ধহস্ত। এ দেশে একাধিক সচিবের মুক্তিযোদ্ধা সনদ জাল বলে প্রমাণিত হয়েছে, যাঁরা প্রশাসনে রাঘব বোয়াল হিসেবে পরিচিত ছিলেন। ধরাকে সরা জ্ঞান করেছেন। তাঁদের বজ্র আঁটুনি ফসকা গেরো যে একদিন খুলে যেতে পারে, হয়তো চিন্তাও করেননি।

বাস্তবতা হলো, এখনো মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়কে সঠিক মুক্তিযোদ্ধা বাছাই অভিযান চালাতে হচ্ছে। তাই সরকারি চাকরি ও পদায়নের ক্ষেত্রে এই বিপুল পরিমাণ সংরক্ষিত কোটা নিয়ে নয়ছয় হচ্ছে না, তার নিশ্চয়তা কে দিচ্ছে? আর বিসিএসে নিয়োগের ক্ষেত্রে অনেক সময় মুক্তিযোদ্ধা কোটা পূরণই হয় না। যেহেতু পূরণ হয় না, সে ক্ষেত্রে ৩০ শতাংশ কোটা রাখা কতটুকু যৌক্তিক, ভেবে দেখা খুব জরুরি।

এরপরে আসে নারী কোটা। অতি সম্প্রতি এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফলে আমরা দেখলাম, ছেলেদের চেয়ে মেয়েদের ফল ভালো (পাসের হারে)। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে অর্ধেকই মেয়ে। অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়েও বোধ করি একই চিত্র। একসময় মেয়েদের জন্য এই কোটার সুবিধা প্রয়োজন ছিল। এখন তাঁরা নিজেদের যোগ্যতায় ছেলেদের সঙ্গে দিব্যি সমানে সমান হয়ে লড়ছে। তাহলে ১০ শতাংশ কোটা রেখে নারীদের অবলা বলে হেয় করার হেতু কী? এ দেশে বেসরকারি চাকরিতে বড় বড় পদে নারীরা কোনো ধরনের কোটা ছাড়াই কি চাকরি করছেন না?

সাধারণত সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত নিয়োগে জেলার জনসংখ্যার ভিত্তিতে জেলাওয়ারি কোটা পুনর্নির্ধারণ করা হয়। সর্বশেষ ২০০৯ সালের ২০ ডিসেম্বর জেলাওয়ারি কোটা নির্ধারণ করা হয়েছিল। গত ৮ জুন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় জেলা কোটা পুনর্নির্ধারণ করে আদেশ জারি করে। নতুন আদেশে দেখা যাচ্ছে, জনসংখ্যা অনুযায়ী সরকারি চাকরিতে নিয়োগে ঢাকা জেলার জন্য সর্বোচ্চ ৮ দশমিক ৩৬ শতাংশ এবং বান্দরবান জেলার জন্য সবচেয়ে কম শূন্য দশমিক ২৭ শতাংশ কোটা নির্ধারণ করা হয়েছে।

জেলা কোটা নিয়ে যতটুকু বোঝা গেল, তাতে এ কোটার আর প্রয়োজন নেই। থাকতে পারে ‘অনগ্রসর জেলা কোটা’। উদাহরণ হিসেবে বলা যেতে পারে, গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট আর নোয়াখালী, কুমিল্লা, ফেনী জেলা এক নয়। শিক্ষা ও অর্থনৈতিক চালচিত্রে যে জেলাগুলো পিছিয়ে আছে, সেসব জেলার জন্য কোটা থাকা হয়তো অযৌক্তিক হবে না।

ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জন্য ৫ শতাংশ কোটা সংরক্ষণ খুবই যৌক্তিক। তাদের জন্য রাষ্ট্রের দায়িত্ব রয়েছে। এ দেশে চাকমা ছাড়া মারমা, মুরং, তঞ্চঙ্গ্যা, খাসি, সাঁওতালসহ অন্য যেসব ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী আছে, তারা শিক্ষাসহ মৌলিক অধিকার থেকে অনেকটাই বঞ্চিত। সে ক্ষেত্রে তাদের টেনে তোলা ন্যায়সংগত।

তবে প্রতিবন্ধী কোটা কি কার্যকর? সচরাচর সরকারি চাকরিতে কোনো মাঝারি বা বড় পদে কোনো প্রতিবন্ধী মানুষকে দেখা যায় না। নাকি উপযুক্ত প্রার্থীর অভাব?

আমার মনে হয়, ছিটমহলের বাসিন্দাদের জন্য কোটা সংরক্ষণ করা দরকার। এ দেশের নাগরিক হয়ে অনেক আশায় তারা বুক বেঁধেছেন। এখানকার বাসিন্দাদের অন্তত এক প্রজন্মের জন্য হলেও কোটা দরকার হবে।
সবমিলে যা দাঁড়াচ্ছে, এ দেশের মেধাবী তরুণদের যদি আমরা উপযুক্ত ব্যবহার করতে চাই, যদি ঠেকাতে চাই তাদের অনাবশ্যক বিদেশ-মুখিনতা, তাহলে কোটাব্যবস্থার আশু সংস্কার জরুরি। কোটার ভারে তরুণদের মনে হতাশার ছায়া পড়তে দেওয়া ঠিক হবে না।

পাশাপাশি যাঁরা কোটাসুবিধা নিয়ে সিভিল সার্ভিসে যোগদান করছেন, চাকরিজীবনে তাঁদের নৈপুণ্য নিয়ে বিশদ গবেষণা হোক।

বর্তমান সরকার তো অনেক সাহসী পদক্ষেপ নিয়ে প্রশংসা কুড়াচ্ছে। তাহলে জরুরি এ কাজটি আর পিছিয়ে থাকে কেন?

কাজী আলিমউজজামান: সাংবাদিক
alimkzaman@gmail.com

সূত্র: প্রথম আলোfavicon59-4

Leave a Reply