সহজাত উদ্যোক্তার ৭ লক্ষণ

সহজাত উদ্যোক্তার ৭ লক্ষণ

  • উদ্যোক্তা ডেস্ক

ব্যবসা ক্ষেত্রে উদ্যোক্তাদের কিছু সহজাত প্রবণতা থাকে। যাদের মধ্যে এসব প্রবণতা নেই, অনেক চেষ্টা করেও তারা এ সবগুলো গুণ অর্জন করতে পারেন না। ব্যবসা শুরু করা বহু মানুষই বলেন যে, তাদের অনেক আগেই ব্যবসা শুরু করা উচিত ছিল। কিন্তু তাদের মাঝে থাকা উদ্যোক্তা হওয়ার স্বাভাবিক প্রবণতার বিষয়টি তারা ধরতে পারেননি। আপনার মাঝে যদি এ লক্ষণগুলো থাকে তাহলে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করে শুরু করতে পারেন আপনার নিজের কোনো ব্যবসা। এ লেখায় প্রকাশিত গুণগুলো বিবেচনা করে নির্ণয় করুন, আপনার মাঝে সফল উদ্যোক্তা হওয়ার সম্ভাবনা কতটুকু।


. আপনার চ্যালেঞ্জ পছন্দ
কিছু মানুষের কাছে চ্যালেঞ্জ অপছন্দ হলেও আপনার কাছে চ্যালেঞ্জ খুবই পছন্দের একটি বিষয়। আপনার নতুন চ্যালেঞ্জ প্রয়োজন হয় ঠিকভাবে চলার জন্য। আর নতুন নতুন চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে আপনার আগ্রহের শেষ নেই। আপনার এ চ্যালেঞ্জিং মানসিকতার জন্য কর্মক্ষেত্রে বসরা আপনার সঙ্গে তাল মেলাতে অসন্তুষ্টি বোধ করেন। আপনার এ চ্যালেঞ্জিং মানসিকতাই বলে দেবে আপনার উদ্যোক্তা হওয়ার যোগ্যতার কথা।

. আপনি একজন বিদ্রোহী
আপনি নিয়ম ভাঙতে পছন্দ করেন এবং বিভিন্ন বিষয় ভিন্নভাবে করতে চান। অন্যরা কখনও যে পথে কোনো কাজ করেনি, আপনি সেই পথে কাজ করতে চান। ভেতরের নিয়মগুলো আপনি অপছন্দ করেন। আপনার ক্যারিয়ার জীবনে কখনও এমন ভিন্ন মানসিকতার জন্য সমালোচনার শিকার হতে হয়। কিন্তু আপনি কাজ ঠিকই শেষ করেন, তবে একটু ভিন্নভাবে।

. সব সময় সংশোধন করেন
আপনি সব সময় বহু বিষয় সংশোধন করতে ও মান উন্নত করতে পছন্দ করেন। আপনার সঙ্গী ও বন্ধু-বান্ধবরা আপনার এ সংশোধন অভ্যাস দেখে বিরক্ত। তার পরেও নতুন আইডিয়া এনে নতুন বিষয় সংযোজন ও সংশোধনের মাধ্যমে উন্নত করতে আপনার আগ্রহের শেষ নেই।

. আপনি কর্তৃপক্ষ অপছন্দ করেন
ছোটবেলা থেকেই আপনার পক্ষে পিতা-মাতার দেওয়া নানা নিয়ম অপছন্দ? একই কারণে স্কুলের শিক্ষকরা কি অপছন্দ করতেন আপনাকে? আপনার অফিসের বস কি এখনও আপনাকে নিয়ন্ত্রণ করতে সমস্যায় পড়েন? কর্তৃপক্ষের প্রতি আপনার এই বিরুপ দৃষ্টি আপনার উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য একটি ভালো লক্ষণ। যার অর্থ অন্যদের সহায়তা, পরামর্শ ও আদেশ-নিষেধের বাইরে গিয়ে স্বাধীনভাবে চলতেই আপনি পছন্দ করেন।

. আপনি সম্পর্ক গড়ে তোলেন
আপনি বহু মানুষকে জানেন। যেখানেই আপনি যান, মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলেন। এ যোগাযোগ আপনি সব সময় রক্ষা করেন। তাদের সঙ্গে প্রায়ই আপনি দেখা করেন এবং ঘনিষ্ঠতা রক্ষা করেন। আপনার যদি আজকে চাকরিটি চলে যায়, কালকেই আপনি আরেকটি চাকরি জোগাড় করতে পারবেন। এ লক্ষণ থাকলে বুঝবেন, আপনার মাঝে মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলার স্বভাব রয়েছে, যা একজন ভালো উদ্যোক্তা হওয়ার পূর্বশর্ত।

. আপনি ৯টা৫টা নিয়ে মাথা ঘামান না
স্বাভাবিক অফিস টাইম ৯টা-৫টা সাধারণ মানুষ মেনে চলে। কিন্তু আপনি একজন উদ্যোক্তা হলে এ সময়সূচি আপনার কোনো আগ্রহ তৈরি করে না। আপনি কোনো প্রকল্পে থাকলে এ সময়ের বাইরে বহু সময় ধরে কাজ করেন। আপনার বসের কারণে নয়, আপনি নিজের উদ্যোগেই এ সময়সূচি বাদ দেন। কারণ নির্দিষ্ট সময়ের চেয়ে কাজটি আপনার কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

. চাকরির নিরাপত্তা আপনি ভিন্নভাবে দেখেন
অধিকাংশ মানুষ যেখানে কর্তৃপক্ষের নিয়োগকৃত কোনো বসের অধীনে কাজ করাকেই চাকরির নিরাপত্তার জন্য গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করে, সেখানে আপনি বিষয়টি ভিন্নভাবে দেখেন। আপনার নিয়ন্ত্রণ যতদিন আছে, ততদিন আপনি চাকরির নিরাপত্তা আছে বলেই মনে করেন। আপনি চাকরির নিরাপত্তামূলক বিষয়টিতে ততটা গুরুত্ব না দিয়ে সবকিছুর ওপর নিজের নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখতেই বেশি পছন্দ করেন।favicon59-4

Leave a Reply