ড্যাফোডিলে ‘গ্লোবাল মানি উইক’ পালিত

ড্যাফোডিলে ‘গ্লোবাল মানি উইক’ পালিত

  • উদ্যোক্তা ডেস্ক

সপ্তাহব্যাপী ‘গ্লোবাল মানি উইক ২০১৯’ এর সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান আজ রবিবার (৩১ মার্চ) ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ৭১ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশ্বের ১৩৭টি দেশের সাথে তাল মিলিয়ে “সেইভ লার্ন আর্ন” প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সপ্তাহব্যাপী এ উৎসব আয়োজন করছে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ও বাংলাদেশ স্কিল ডেভলপমেন্ট ইনস্টিটিউট। উৎসবের চীফ প্যাট্ট্রন বাংলাদেশ ব্যাংক এবং প্রধান পৃষ্ঠপোষক হিসেবে রয়েছে ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড। সপ্তাহব্যাপী আয়োজনে পার্টনার হিসেবে ছিল সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, ইএমকে সেন্টার, বিল্ড বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন, ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ক্লাব, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেড, এসআইওয়াইবি বাংলাদেশ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যারিয়ার ক্লাব। আর মিডিয়া পার্টনার হিসেবে ছিল এটিএন বাংলা, নাগরিক টিভি, নিউ এইজ, বণিক বার্তা ও  রেডিও ভূমি।

সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের উপদেষ্টা এস কে সুর চৌধুরী। ড্যাফেডিল পরিবার ও ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টিবোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মো. সবুর খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ ওয়াসেক মোহাম্মদ আলী, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কে এ এম মাজেদুর রহমান এবং গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব ও নাগরিক টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুন নূর তুষার। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন সিওয়াইএফআই এর বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের সভাপতি আমেনা হাসান এনা ও সিওয়াইএফআই এর  এর এমবাসেডর ফারিয়া খান। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ‘গ্লোবাল মানি উইক ২০১৯’  এর আহ্বায়ক ও সিওয়াইএফআই এর এমবাসেডর কে এম হাসান রিপন।

সপ্তাহব্যাপী আয়োজনের মধ্যে ছিল জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ওয়ার্কশপ ও সেমিনার আয়োজন, টক শো, মাস্টার ক্লাস, মাইন্ড ম্যাপিং, শিল্পকারখানা পরিদর্শন, মানি মিউজিয়াম পরিদর্শন, বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের আমন্ত্রণ জানানো এবং তাদের সাথে সেতুবন্ধ রচনা করা, বিভিন্ন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা ও তরুণ উদ্যোক্তাদের পুরস্কৃত করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের উপদেষ্টা এস কে সুর চৌধুরী বলেন, ছোটবেলা থেকেই আমাদের সন্তানদেরকে সঞ্চয়ের মানসিকতা নিয়ে গড়ে তুলতে হবে। তাহলে তাদের ভবিষ্যৎ ক্যারিয়ার আর্থিক কারণে হুমকির মধ্যে পড়বে না। গ্লোবাল মানি উইক উদযাপন কিশোর তরুণ শিক্ষার্থীদেরকে সঞ্চয়ী হতে উদ্বুদ্ধ করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। এসময় তিনি বলেন, বাংলাদেশে স্কুল ব্যাংকিং জনপ্রিয় হচ্ছে। বর্তমানে বিভিন্ন ব্যাংক মিলিয়ে ১৮ লাখ স্কুল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্ট রয়েছে যেখানে ১৫০০ কোটি টাকা সঞ্চিত রয়েছে। এই অভূতপূর্ব অর্জনের জন্য বাংলাদেশ ২০১৭ সালে বিশ্বের ১৯০টি দেশের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে গ্লোবাল ইনক্লুসিভ অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে বলে তিনি জানান।

তরুণ শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে এস কে সুর চৌধুরী আরো বলেন, বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হওয়ার পথে রয়েছে। এজন্য দেশকে এসডিজির লক্ষ্য অর্জন করতে হবে। আর এসডিজির অন্যতম লক্ষ্য হচ্ছে দারিদ্র্য দূরীকরণ ও নারীর ক্ষমতায়ন। এসব লক্ষ্য অর্জনের জন্য অর্থনৈতিক স্বাবলম্বীতা অর্জন করা খুবই জরুরি। তাই শিক্ষার্থীদেরকে স্বাবলম্বী হওয়ার জন্য এখন থেকেই সঞ্চয়ী হওয়ার অভ্যাস গড়ে তোলার পাশপাশি দেশব্যাপী শিশু ও তরুণদের মাঝে অর্থনৈতিক সঞ্চয় মানসিকতা ও সচেতনতা গড়ে তুলতে প্রয়োজনীয় প্রচার-প্রচারণা বৃদ্ধির জন্য আর্থিক প্রতিষ্ঠান সমুহের প্রতি আহ্বান জানান।

সভাপতির বক্তব্যে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান বলেন, আমরা যখন ছোট ছিলাম তখন স্কুল ব্যাংকিংয়ের কোনো সুযোগ ছিল না। আর এখন স্কুল ব্যাংকিং কিশোর ও তরুণ শিক্ষার্থীদের সামনে বিরাট সুযোগ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। তার পাশাপাশি প্রতিটি তরুণ-তরুণীর হাতে রয়েছে স্মার্ট ফোন যার মাধ্যমে অবারিত তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় সমগ্র পৃথিবীর মানুষের সাথে শক্তিশালী নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা সম্ভব আর এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে ইতিমধ্যে অনেক শিক্ষার্থীই স্বাবলম্বী হয়েছে। অনেকে উদ্যোক্তা হয়েছে। সুতরাং প্রতিটি শিক্ষার্থীকে এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে সঞ্চয়ী হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ ওয়াসেক মোহাম্মদ আলী বলেন, তরুণ প্রজন্মের হাত ধরেই বাংলাদেশের অর্থনীতি আজ এই পর্যায়ে এসেছে। আমাদের তরুণরা অসম্ভব সম্ভাবনাময়। তারা ব্যাংকিং সেক্টরকে বদলে দিচ্ছে। এসময় তিনি স্কুল ব্যাংকিংয়ের উদাহরণ দিয়ে বলেন, স্কুল ব্যাংকিংয়ে বাংলাদেশে যে সাফল্য দেখিয়েছে তা নজিরবিহীন। ব্যাংকগুলো যদি আরো পরিকল্পিত উপায়ে কাজ করে তবে সাফল্য আরো দ্রুত আসবে বলে অভিমত দেন কে এ এম মাজেদুর রহমান।

Leave a Reply