শীতের দিনে ব্যায়াম

শীতের দিনে ব্যায়াম

মোস্তাফিজুর রহমান : মধ্য শীত। নাক ঝরছে! চোখ দিয়ে জল গড়িয়ে আসছে! ঠাণ্ডায় হাত, পা, মুখ, ফুসফুস, গাল সব অবস হওয়ার অবস্থা। কিন্তু তাই বলে কী আর সব কাজ বন্ধ থাকবে? প্রতিদিন সকালে ব্যায়াম তো করা চাই। কনকনে শীতের মধ্যেও প্রয়োজনের তাগিদে আপনাকে বাইরে কাজে যেতে হবে। আপনাকে শীতের দিনের এই হিমশীতল তাপমাত্রার সাথে মানিয়ে নিতেই হবে। আসুন জেনে নি এ বিষয়ে নিউ ইয়র্ক রোড় রানার অর্গানাইজেশন এর প্রধান কোচ জন অনারকাম্প এর দেওয়া কিছু চমৎকার পরামর্শ।


নতুন জলবায়ুতে নিজেকে অভ্যস্ত করে নিন

  • শীতের ঠাণ্ডা হাওয়া আপনার সাথে নিষ্ঠুর রসিকতা করবে, কনকনে শীতে হাঁটতে গিয়ে, মনে হবে পা কাদায় আটকে গেছে, গলা এবং ফুসফুস বরফ হয়ে গেছে। যদিও ওই মুহূর্তে আপনার কাছে বিশ্বাস কার কঠিন, কিন্তু ক্রমশ আপনার শরীর শীতের উপযোগী হয়ে উঠবে। আপনাকে রণে ভঙ্গ দিলে চলবে না; শীতের ভয়ে হাল ছেড়ে দিলে হবে না। এই ঠাণ্ডা আবহাওয়ায় আপনাকে বাইরের কাজ চালিয়ে যেতে হবে।

আপনি হিমশীতল আবহাওয়ায় কাজ বা ব্যায়াম করতে গেলে শুরুতেই প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হবেন। আপনার শরীর স্বাভাবিক কাজের গতিতে আসতে একটু বেশি সময় নিবে, কাজেই শরীর গরম করে কাজে পূর্ণ উদ্যম আনতে কাজ অথবা ব্যায়াম করে যান। আশা করা যায়, কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই আপনি ঠান্ডা পরিবেশে মানিয়ে নিতে পারবেন।

একজন সাহায্যকারী খুজে বের করুন

  • নিজেকে মানিয়ে নেওয়ার আগেই ঠাণ্ডার মধ্যে অস্বস্তিকর কাজ ছেড়ে আসতে মন চাইবে। তাই আপনার কাজে সাহায্য করার মতো একজনকে খুজে বের করুন। কয়েক জন দলবদ্ধ হয়ে ব্যায়াম করুন, শীত কেটে যাবে।

শুষ্কতা প্রতিরোধ

  • কাজ করার সময় গ্রীষ্মকালের মতো দরদর করে আপনি গামবেন না। বরং ত্বক শুষ্ক হয়ে যাবে। কাজেই শুষ্কতা মোকাবেলার যথার্থ ব্যবস্থা নিতে হবে। বডি লোসন, পেট্রলিয়াম জেলি ব্যবহার করুন।

পোষাক

  • হিমশীতল আবহাওয়ার মধ্যে বলিষ্ঠ দৌড়বিদের মতো দৌড়াতে ঠিকঠাক শীতের পোশাক পরে নিন। কয়েক স্তরের কাপড় পরতে পারেন। দৌড়াতে গিয়ে ঘামতে শুরু করলে উপরেরটা খুলে ফেলুন; আবার শীত লাগলে পরে নিন।

পোশাক পাল্টে ফেলুন

  • আপনি যাই পরুন না কেন, ব্যায়াম বা কাজ শেষে দ্রুত পোশাক পালটে ফেলুন। তা না হলে পূর্বের চেয়ে আরও বেশি শীত লাগতে পারে। দ্রুত গরম কাপড় পরিধান করুন। গোসল করে ফেললে আরও ভালো হয়।

কখন বের হওয়া উচিত না

  • ব্যায়াম বা কাজে বের হওয়ার পূর্বে জলবায়ুর অবস্থা বুঝে নিন। তাপমাত্রা পর্যবেক্ষণ করুন। যদি প্রচণ্ড ঠান্ডা হয় অর্থাৎ তাপমাত্রা শূন্য ডিগ্রীর কাছাকাছি অথবা হিমবাহ হয় তবে বাইরে বের না হওয়ায় ভালো। শীতে শতর্কতার সাথে ব্যায়াম এবং দৈনন্দিন কাজকর্ম করুন। শীতকে উপভোগ করুন।

Leave a Reply