পেশা যখন অনুবাদক

পেশা যখন অনুবাদক

রবিউল কমল: যতগুলো দেশ, ততগুলো ভাষা… আসলে তার চেয়েও অনেক অনেক বেশী। এই বিশাল পৃথিবীতে আছে যেমন হরেক রকম মানুষ, তেমনি হাজার হাজার ভাষা। ভিন্ন ভাষাভাষী মানুষ বা সমাজের মাঝে এই ভাষা পার্থক্য দূর করাই অনুবাদকের কাজ। এক ভাষার তথ্য-উপাত্ত-জ্ঞান-সংবাদ-সাহিত্য ইত্যাদি যারা ভিন্ন এক বা একাধিক ভাষায় রূপান্তরিত করে উপস্থাপন করেন মূলত তাদেরকেই আমার বলে থাকি অনুবাদক।


আমাদের দেশে এখন নতুন নতুন বিষয়ে কাজের ক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে। এরকমই একটি কাজ হচ্ছে অনুবাদের কাজ। আমাদের মাতৃভাষা বাংলার পাশাপাশি অন্য বিদেশি ভাষায় যাদের ভালো জ্ঞান আছে এই ক্ষেত্রে তাদের চাহিদা বেশি। অনেক বিদেশি দূতাবাসেই এখন অনুবাদক হিসেবে কাজের জায়গা ও চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এছাড়াও বড় বড় কোম্পানিগুলোতে যারা বাংলা থেকে ইংরেজি অনুবাদে দক্ষ তাদেরকে ভালো সুযোগ দেয়া হচ্ছে। গণমাধ্যমগুলোতে আন্তর্জাতিক সংবাদ বাংলায় অনুবাদের যেমন ব্যবহার আছে, তেমনি অন্যান্য ভাষার ব্যবহারও সমান ভাবে গুরুত্ব পাচ্ছে। চায়নিজ, কোরিয়ান বা জাপানি ভাষা জানা আছে এমন অনুবাদকের চাহিদাও বৃদ্ধি পাচ্ছে ক্রমশ। তাছাড়া সাহিত্যের জগতে কদর তো আছেই।

অনুবাদকের কাজ কী?

অনুবাদকের কাজ হচ্ছে দলিল, হলফনামা, নিকাহনামা, জীবনবৃত্তান্ত, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সার্টিফিকেট, মামলা-মোকদ্দমার কাগজপত্র, ভিসা সংক্রান্ত বিভিন্ন কাগজ বাংলা থেকে ইংরেজিতে অনুবাদ করা। এছাড়া সাহিত্যের জগতেও অনুবাদকেরা একটা বড় স্থান নিয়ে আছেন। বিদেশী ভাষার সাহিত্যের সাথে তারাই পরিচয় করিয়ে দিচ্ছেন আমাদের।

কাজের যোগ্যতা: অনেকে মনে করেন ইংরেজি বা বাংলা বিষয়ে যারা পড়াশোনা করেন তাদের দক্ষতাই বেশি এই ক্ষেত্রে। কিন্তু এই ধারণা সম্পুর্ন অমুলক। অনেকেই আছেন ইংরেজি বা বাংলায় স্নাতক বা স্নাতকোত্তর করার পরও ভাষায় দক্ষতা থাকেনা! আবার অনেকে এই মাধ্যম ছাড়া অন্য কোন বিষয়ে পড়ালেখা করেও অনুবাদ খুব ভালো করতে পারেন। তাই এ ক্ষেত্রে যোগ্যতার বিচারটা ভাষা দক্ষতার ও এর সঠিক প্রয়োগের উপর নির্ভর করে। যদি কেউ ইংরেজি বা বাংলা ভাষার শব্দজ্ঞান ও এর উপযুক্ত ব্যবহার বোঝে তাহলে অনুবাদক হিসেবে কাজ করতে পারে। আমাদের দেশে অনুবাদকের কাজ শেখায় এমন প্রতিষ্ঠান না থাকলেও, বিদেশি ভাষা শেখানো হয় এমন অনেক প্রতিষ্ঠান আছে। তাই ভালো কোন প্রতিষ্ঠান থেকে ভাষা শিক্ষার কোর্স করে আপনিও হয়ে যেতে পারেন একজন দক্ষ অনুবাদক।

কাজের ক্ষেত্র ও সুবিধা: বিভিন্ন গনমাধ্যম, দূতাবাস, এনজিও ও অনুবাদকেন্দ্রে এ পেশার ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। এছাড়াও অনেক বিদেশি লেখকের লেখা অনুবাদ করেও বিভিন্ন প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানে কাজ করা যায়। সাধারণত কোন প্রতিষ্ঠানে অনুবাদক হিসেবে কাজ করে প্রাথমিক ভাবে ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা পর্যন্ত সম্মানী পাওয়া যায়। নিয়মিত ও বড় কাজের পাশাপাশি অনিয়মিত কিছু কাজ – যেমন, এক পৃষ্ঠা বাংলা থেকে ইংরেজি বা ইংরেজি থেকে বাংলা অনুবাদ করলে ১০০ থেকে ১৫০ টাকা পর্যন্ত পাওয়া যায়।

অনলাইনে আয়ের সুবিধা: অনলাইনে বিভিন্ন ভাষায় প্রচুর ফিল্যান্সিং ওয়েবসাইট আছে। এসব সাইট থেকেই অনেক অনুবাদের কাজ পেতে পারেন। যারা অনুবাদে ভালো তারা ঘরে বসেই অনলাইনে আয় করতে পারেন।

ইংরেজি অথবা বাংলা ছাড়াও আপনার যদি অন্য ভাষা জানা থাকে তাহলে সেই জ্ঞান কাজে লাগিয়েও আপনি অনুবাদকের কাজ করে আয় করতে পারেন। চাকরি পাচ্ছেন না বলে আফসোস না করে আপনার এই গুণটি কাজে লাগিয়ে শুরু করতে পারেন অনুবাদকের কাজ। favicon

Leave a Reply