সৃষ্টিশীল মানুষের ১০ লক্ষণ

সৃষ্টিশীল মানুষের ১০ লক্ষণ

লিডারশিপ ডেস্ক: পৃথিবীতে দুই ধরনের মানুষ বেশি দেখা যায়। এর মধ্যে এক ধরনের মানুষ সবসময় একটি কাজ নিয়েই থাকতে পছন্দ করে। তবে আর এক ধরনের মানুষ আছে, যারা একটি কাজ নিয়ে থাকতে পারে না। তারা বিভিন্ন কাজের সাথে জড়িয়ে পড়ে। এক্ষেত্রে সৃষ্টিশীল মানুষদের মধ্যে বিভিন্ন কাজে জড়িয়ে পড়ার ঝোঁকটা বেশি দেখা যায়। কিন্তু বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই মানুষ তাদের ভুল বুঝে থাকে। সবার একটি ধারণা তৈরি হয়ে যায় যে তাদের দিয়ে কিছু হবে না, কিন্তু পরে দেখা যায় সাফল্য তাদের পেছনেই ছুটছে। সাম্প্রতিক ক্যারিয়ার-বিষয়ক ওয়েবসাইট ক্যারিয়ার এডিক্ট ডটকম সৃষ্টিশীল মানুষদের ১০ লক্ষ্মণ কথা জানিয়েছে।


১. তারা ব্যর্থ হয়, কিন্তু আবার চেষ্টা করে: একটা কথা আছে, ‘যখন আপনি মাটিতে পড়ে যান, তখন আপনি হেরে যান না। কিন্তু যখন আপনি উঠে দাঁড়ানোর চেষ্টা বাদ দিয়ে দেন, তখনই আপনি হেরে যান।’ এই প্রবাদটি তারা সবসময় মেনে চলে এবং সৃষ্টিশীল মানুষদের ক্ষেত্রে এটা বরাবরই ঘটে। তারা হুট করে কোনো কিছুর পেছনে তাদের সব মনোযোগ দিয়ে বসে। অনেক ক্ষেত্রে সফলতা আসে না। কিন্তু তারা হাল ছাড়ার পাত্র নয়। ব্যর্থ হলেও তারা বারবার সফল হওয়ার জন্য চেষ্টা করতে থাকে।

২. সময়জ্ঞান থাকে না: যখন কোনো কাজে মজা পেয়ে যায় তারা তখন সময়ের দিকে তাদের কোনো খেয়াল থাকে না। সবকিছু বাদ দিয়ে সেই কাজের পেছনেই সারা দিন ব্যয় করে।এমনও হয় যে তারা ঘুমাতেও ভুলে যায় । আর এই ক্ষ্যাপাটে স্বভাবের কারণেই তারা নতুন কিছু সৃষ্টি করতে পারে।

৩. নিজের কাজ কখনো পছন্দ হয় না: এটাও এক বিড়ম্বনা সৃষ্টিশীল মানুষদের জন্য। তারা কখনোই নিজের কাজে সন্তুষ্ট হতে পারে না। খুব আগ্রহ নিয়ে একটা কাজ শেষ করার কিছুদিন পরই তাদের মনে হবে, কাজটা কিছুই হয়নি। তখন আবারও নতুন কিছু নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ে তারা।

৪. একঘেয়েমি: প্রথমেদিকে সব বিষয়ে তাদের খুব আগ্রহ থাকে। কিছুদিন যাওয়ার পর হঠাৎ করেই সেই আগ্রহ চলে যায় এবং তারা নতুন ধরনের কাজ খুঁজে থাকে। তাই এক ধরনের কাজ সৃষ্টিশীল মানুষদের পক্ষে বেশিদিন করা একেবারেই অসম্ভব। তারা সবসময় এই সমস্যায় ভুগে থাকে।

৫.চাকরি করতে পছন্দ করে না: তারা স্বাধীনভাবে কাজ করতে পছন্দ করে আর সেজন্য সৃষ্টিশীল মানুষদের দ্বারা কখনো দীর্ঘসময় চাকরি করা সম্ভব হয় না। এবং সেজন্যই আত্মকর্মসংস্থানের চেষ্টা থাকে তাদের মধ্যে। সুযোগ পেলেই চাকরি ছেড়ে নিজের মতো কাজ করা শুরু করার সাহস তারা রাখে, যদিও জীবনে তাদের অনেক কষ্ট স্বীকার করতে হয়।

৬. স্বপ্ন দেখার অসুখ: মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়- এটি সৃষ্টিশীল মানুষদের খুব পছন্দের কথা। তারা স্বপ্ন দেখতে থাকে কারণ তার স্বপ্ন দেখতে ভালবাসে। তবে তাদের সব স্বপ্ন পূরণ হয় না, কারণ তাদের স্বপ্নের কোনো শেষ নেই।

৭. রাত জেগে কাজ করা: এটা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো না হলেও সৃষ্টিশীল মানুষরা রাত জেগেই কাজ করতে পছন্দ করে। সবাই যখন ঘুমায় তখন তাদের কাজ শুরু হয় আবার সবাই যখন কাজ করে তখন তারা ঘুমায়। এই হল তাদের লাইফস্টাইল।

৮.শিশুতোষ: সৃষ্টিশীল মানুষদের মধ্যে শিশুশুলভ একটি ভাব থাকে। তারা সাধারণত শিশুদের মতো আচরণ করে থাকে। খুব অল্পতেই বিরক্ত হয়ে যায়, চিৎকার চেচামেচি করে। কিন্তু এরা আবার কৌতুক প্রিয় হয়। নিজে হাসে আবার অন্যকে হাসাতেও পারে। আনন্দ-বেদনা-উচ্ছ্বাস সব ক্ষেত্রেই তারা বাড়াবাড়ি করে। আবেগী হওয়ার কারণেই এমনটা করে তারা।

৯. চারপাশে খেয়াল রাখে: এদের দৃষ্টি অনেক প্রখর হয়। মাটির একটা ছোট পিপড়া থেকে আকাশের বিশাল বিমান- কোনো কিছুই সৃষ্টিশীল মানুষদের দৃষ্টি এড়ায় না। তারা সবকিছু খুব মনোযোগ দিয়ে পর্যবেক্ষণ করে। বিশেষ করে চারপাশের মানুষ এবং প্রকৃতি, কারণ সেখান থেকেই তারা কাজের অনুপ্রেরণা পায়।

১০. হৃদয় দ্বারা চালিত: সৃষ্টিশীল মানুষরা বেশির ভাগ সময়ই তাদের হৃদয় দিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়। মাথা দিয়ে তারা কম সময়ই চিন্তাভাবনা করে। সবসময় মনের কথা শুনতেই তারা অভ্যস্ত। মন যা চায়, সেটা নিয়েই মেতে থাকে তারা। favicon

Leave a Reply