পর্দা নামলো আইসিটি কার্নিভালের

পর্দা নামলো আইসিটি কার্নিভালের

  • ক্যাম্পাস ডেস্ক

জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের আশুলিয়া স্থায়ী ক্যাম্পাসে আজ (১৩ ফেব্রুয়ারি) শেষ হলো তিন দিনব্যাপী দেশের প্রথম ও বৃহত্তম ‘ড্যাফোডিল আইসিটি কার্নিভাল ২০১৮’। সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের  চেয়ারম্যান ড. মো. সবুর খান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিসিএস ও বেসিসের সাবেক সভাপতি এস এম কামাল ও আইবিসিএস প্রাইমেক্স এর প্রতিষ্ঠাতা বেসিসের সাবেক সভাপতি এ তৌহিদ। ড্যাফোডিল ফ্যামিলির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও কার্নিভালের আহ্বায়ক মোহাম্মদ নূরুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইউসুফ এম ইসলাম, উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. এস এম মাহবুব উল হক মজুমদার, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর ড. গোলাম মওলা চৌধুরী, স্থায়ী ক্যাম্পাসের ডিন প্রফেসর ড. মোস্তফা কামাল, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান প্রফেসর ড. সৈয়দ আকতার হোসেন, সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান ড. তৌহিদ ভূইয়া, মাল্টিমিডিয়া অ্যান্ড ক্রিয়েটিভ টেকনোলজি বিভাগের প্রধান ড. শেখ মোহাম্মদ আলায়ার ও কম্পিউটিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেম বিভাগের প্রধান সরোয়ার হোসেন মোল্লা প্রমুখ।

তিন দিনব্যাপী এ কার্নিভালে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে আয়োজিত প্রতিযোগিতায় মোট দশ লক্ষ টাকার পুরস্কার প্রদান করা হয়। প্রোগ্রামিং কনটেস্টে ‘হিরো আলম’ দল চ্যাম্পিয়ন হয়ে এক লক্ষ টাকা প্রাইজ মানি লাভ করে। এ দলের সদস্যরা হলেন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের নীরব, হাসিব, শুভ ও অমিত। প্রথম রানার আপ হয় কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ‘টার্মিনেটর সি’ দল। এ দলের সদস্যরা হলেন  শাকিল, রিজওয়ানুল ও নূর সালমান ( প্রাইজ মানি ৫০ হাজার টাকা)।

প্রজেক্ট প্রর্শনীতে স্বাস্থ্য বিষয়ক প্রকল্প সিটিজেন হেলথ ইনফরমেশন সিস্টেম প্রথম, আশার আলো অনলাইন স্কুল দ্বিতীয়  ও ক্লাউড কানেক্টেড সিটি তৃতীয় হওয়ার গৌরব অর্জন করে।

সুডোকো কনটেস্টে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অমিত কুমার বালা, দ্বিতীয় ও তুতীয় হয় একই বিভাগের যথাক্রমে মজিবুর রহমান ও হাসান তৌফিক আহমেদ।

মোশান গ্রাফিক্স কনটেস্টে মাল্টিমিডিয়া অ্যান্ড ক্রিয়েটিভ টেকনোরজি বিভাগের চয়ন সরকার প্রথম এবং একই বিভাগের ফিরোজ কবির ও খন্দকার তরিকুল ইসলাম যথক্রমে দ্বিতীয় ও তুতীয় হওয়ার গৌরব অর্জন করে।

বিজনেস আইডিয়া প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের আসিফ মাহামুদ শুভ ও  ইশতিয়াক মাহামুদ, দ্বিতীয় হয়  সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের আতিকুর রহমান খান এবং তৃতীয় হয় কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের এস এম মোস্তাফিজুর রহমান।

মোবাইল এপ্লিকেশন আইডিয়া প্রতিযোগিতায় প্রথম হয় কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তালহা জুবায়ের, দ্বিতীয় হয় একই বিভাগের মো. সাইফুল ইসলাম ও তুতীয় (যৌথভাবে) হয় আশিক  ই রব্বানী ও সামসুল আরেফিন।

দেশের সর্ববৃহৎ এ কার্নিভালে ছিল আইসিটি প্রজেক্ট প্রদর্শনী, ভার্চুয়াল গেমিং কর্নার, লার্নিং টু লার্ন, গ্রাফিক্স আর্ট কনটেস্ট, আইটি অলিম্পিয়াড, ইন্টারেক্টিভ সেশন, প্যানেল ডিসকাশন, ক্যারিয়ার টক, সেমিনার, ওয়ার্কশপ, সিম্পোজিয়াম, স্মার্ট ক্যাম্পাস হ্যাকাথন, প্রোগ্রামিং কনটেস্ট, কুইজ প্রতিযোগিতা, ফান গেইম, মুভি, গেইম শো ও টেক ফ্যাশন শো, বিজনেস আইডিয়া কনটেস্ট, টেক ডিবেট, এলামনাই ডায়ালগ, মোটিভেশন সেমিনার, আইসিটি শিল্পে ক্যারিয়ার বিষয়ে ডায়ালগ, গুগল টক, গেমিং কনটেস্ট. মিউজিক্যাল শো ইত্যাদি।

Leave a Reply