অধ্যাপক এনাম পেলেন ‘শ্রেষ্ঠ অধ্যাপক সম্মাননা’

অধ্যাপক এনাম পেলেন ‘শ্রেষ্ঠ অধ্যাপক সম্মাননা’

  • ক্যাম্পাস ডেস্ক

বাংলাদেশ স্থাপত্য শিক্ষাকার্ক্রমে অনবদ্য অবদানের জন্য ‘শ্রেষ্ঠ অধ্যাপক’ সম্মাননা পেয়েছেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির স্থাপত্য বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর মো. খায়রুল এনাম। আন্তর্জাতিক সংস্থা ‘দ্য ওয়ার্ল্ড এডুকেশন কংগ্রেস’ সিএমও এশিয়া এবং ‘সিএমও কাউন্সিল’ যৌথভাবে তাকে ‘এডুকেশন লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড ২০১৯’ সম্মানে ভূষিত করেছে। বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) ঢাকার সোনারগাঁও হোটেলে এক অনুষ্ঠানে প্রফেসর খায়রুল এনামকে এ পদকে ভূষিত করা হয়।

বাংলাদেশের স্থাপত্য শিক্ষা ব্যবস্থার অন্যতম পুরোধা ব্যক্তিত্ব প্রফেসর এনাম অসংখ্য পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। ২০১৮ সালে তিনি বাংলাদেশ স্থাপত্য ইনস্টিটিউটের আজীবন সম্মাননা লাভ করেন। বর্ণাঢ্য কর্মজীবনে তিনি বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) স্থাপত্য বিভাগের বিভাগীয় প্রধান এবং স্থাপত্য ও নগর পরিকল্পনা অনুষদের ডিন হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া তিনি ১৯৯৪ সালে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ছিলেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য।

বর্তমানে তিনি ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির স্থাপত্য বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান হিসেবে কর্মরত। তার হাত ধরেই আশুলিয়ায় বাস্তবায়িত হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়টির সুবিশাল স্থায়ী ক্যাম্পাস।

এর আগে বেসরকারি স্টেট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের স্থাপত্য বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন প্রফেসর এনাম।

শিক্ষকতার পাশাপাশি প্রফেসর এনাম অসংখ্য স্থাপত্য নকশা ও পরিকল্পনাও করেছেন। এর মধ্যে জনতা ব্যাংক প্রধান কার্যালয়, ‍বুয়েটের ইউআরপি বিভাগ, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, আফগানিস্তানের বালখ ইউনিভার্সিটির মাস্টারপ্ল্যান উল্লেখযোগ্য।

এছাড়া বুয়েটের এক্সিডেন্ট রিসার্চ সেন্টার, ইসলামী ব্যাংক প্রধান কার্যালয়, বনানী সোশ্যাল মার্কেটিং কোম্পানি, সাভার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব বায়োটেকনোলজি, এফআইসিআইসি টাওয়ার, আশুলিয়া ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাসের মাস্টারপ্ল্যানও করেছেন তিনি।

Leave a Reply