নেশা থেকে পেশা

নেশা থেকে পেশা

  • ক্যারিয়ার ডেস্ক

বিশ্ববিদ্যালয়ের শুরু থেকে ফটোগ্রাফির প্রতি ভালোবাসা। সেটাই নেশা থেকে পেশা। সামাজিক প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে কাজ করতে থাকেন দেশ বিখ্যাত বেশ কয়েকটি ওয়েডিং ফটোগ্রাফি প্রতিষ্ঠানে। ফ্যাশন ফটোগ্রাফিও চলতে থাকে। শুরুর দিকে ২০১১তে এসডব্লিউ মাল্টিমিডিয়াতে কাজ করেছেন আলোকচিত্রী আসিক কবীর। দিনে দিনে ৭৫০টির অধিক ইভেন্টে ফটোগ্রাফি করার অভিজ্ঞতা আর ক্লায়েন্টের ভালোবাসা অর্জন করে ২০১৬তে উদ্যোগ নেন ‘এমিনেন্ট ফটোগ্রাফস’ নামক প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলার। প্রথম থেকেই সঙ্গে পেয়েছেন প্রতিষ্ঠাতা সহযোগী আলোকচিত্রী অভিজিৎ সরকারকে। স্বপ্নটা অনেক বড়। তারই অংশ হিসেবে তারেক আজিজ, মঈন অভি, শরীফ মাহমুদদের মতো উদ্যোমী তরুণ আলোকচিত্রীদের নিয়ে একটি পেশাদার টিম হিসেবে গড়ে ওঠে আজকের এমিনেন্ট ফটোগ্রাফস।

শুরু : পোকা মাকড়ের তোলা শুরুর দিকের ম্যাক্রো ছবিগুলোই প্রথম নেশা জাগায়। সামাজিক প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে সেই সময় ফটোগ্রাফিকে পেশা হিসেবে নেয়া সুখকর ছিল না। অধ্যাপক পিতার সহযোগিতা আর মুহূর্তকে একটা ফ্রেমে আবদ্ধ রাখার তীব্র আকাঙ্ক্ষাই তখন আমার শক্তি।

এমিনেন্টের কাজের ক্ষেত্র : ওয়েডিংসহ বিভিন্ন সোসাল ইভেন্ট আমাদের মূল ফোকাস। কর্পোরেট ইভেন্টস আর ডকুমেন্টারি করে সাফল্য পেয়েছি। নিজস্ব স্টুডিওতে প্রোডাক্ট এবং মডেল ফটোগ্রাফি নিষ্ঠার সঙ্গে চালিয়ে যাচ্ছি। বেশ কয়েকটি ফ্যাশন হাউজ ইতিমধ্যে চুক্তিবদ্ধ। এ ছাড়া দিনে দিনে আমরা সমৃদ্ধ করছি আমাদের স্টক ফটোগ্রাফিকে।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা : আলোকচিত্রের ওপর প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার গুরুত্ব বাড়ানোর চেষ্টা করব। দেশীয় সীমাবদ্ধতা ও প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করে বাংলাদেশের আলোকচিত্র শিল্পকে প্রতিষ্ঠা করতে চাই- বিশ্ব দরবারে।

নতুনদের উদ্দেশ্যে : সম্ভাবনাময় এ শিল্পকে এগিয়ে নেয়ার দায়বদ্ধতা থেকে নিজের আকাক্সক্ষাতে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন।favicon59-4

Leave a Reply