পাইথন কেন শিখবেন

পাইথন কেন শিখবেন

  • ক্যারিয়ার ডেস্ক

বিশ্বজুড়ে পাইথন ল্যাঙ্গুয়েজের চাহিদা বাড়ছে। এখনকার সবচেয়ে চাহিদাসম্পন্ন ও দরকারি ল্যাঙ্গুয়েজ পাইথন। পাইথন প্রোগ্রামিং এখন অনেকখানি জায়গা জুড়ে আছে আছে প্রোগ্রামিংয়ের দুনিয়াতে।

পাইথন (Python) একটি বস্তু-সংশ্লিষ্ট (object-oriented) উচ্চস্তরের প্রোগ্রামিং ভাষা। ১৯৯১ সালে গুইডো ভ্যান রস্যিউম এটি প্রথম প্রকাশ করেন।পাইথন নির্মাণ করার সময় প্রোগ্রামের পঠনযোগ্যতার উপর বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। এখানে প্রোগ্রামারের পরিশ্রমকে কম্পিউটারের চেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। পাইথনের কোর সিনট্যাক্স ও সেমান্টিক্‌স খুবই সংক্ষিপ্ত, তবে ভাষাটির স্ট্যান্ডার্ড লাইব্রেরি অনেক সমৃদ্ধ। পাইথন প্রোগ্রামারদের সমাজ থেকে পাইথন দর্শন এর সূচনা হয়েছে।

পাইথন একটি বহু-প্যারাডাইম প্রোগ্রামিং ভাষা (ফাংশন-ভিত্তিক, বস্তু-সংশ্লিষ্ট ও নির্দেশমূলক) এবং এটি একটি পুরোপুরি চলমান প্রোগ্রামিং ভাষা যার স্বনিয়ন্ত্রিত মেমরি ব্যবস্থাপনা রয়েছে। এদিক থেকে এটি পার্ল, রুবি প্রভৃতি প্রোগ্রামিং ভাষার মতো।

পাইথন ভাষার মুক্ত, কমিউনিটি-ভিত্তিক উন্নয়ন মডেল রয়েছে, যার দায়িত্বে আছে পাইথন সফটওয়্যার ফাউন্ডেশন নামের একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান। এই ভাষাটির বিভিন্ন অংশের বিধিবদ্ধ বৈশিষ্ট্য ও আদর্শ থাকলেও পুরো ভাষাটিকে এখনো সম্পূর্ণ বিধিবদ্ধ করা হয়নি। তবে কার্যত সিপাইথন ভাষাটির আদর্শ বাস্তবায়িত রূপ।

যে সকল বড় বড় প্রকল্পে পাইথন ব্যবহৃত হয়েছে তার মধ্যে জোপ অ্যাপ্লিকেশন সার্ভার, এমনেট ডিস্ট্রিবিউটেড ফাইল স্টোর, ইউটিউব এবং মূল বিটটরেন্ট ক্লায়েন্ট উল্লেখযোগ্য। যে সমস্ত বড় প্রতিষ্ঠান পাইথন ব্যবহার করে তাদের মধ্যে গুগল ও নাসা উল্লেখযোগ্য।

১৯৯১ সালে গুইডো ভ্যান রস্যিউম এটি প্রথম প্রকাশ করেন। পাইথন নির্মাণ করার সময় প্রোগ্রামের পঠনযোগ্যতার উপর বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। এখানে প্রোগ্রামারের পরিশ্রমকে কম্পিউটারের চেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। পাইথনের কোর সিনট্যাক্স ও সেমান্টিক্‌স খুবই সংক্ষিপ্ত, তবে ভাষাটির স্ট্যান্ডার্ড লাইব্রেরি অনেক সমৃদ্ধ। পাইথন প্রোগ্রামারদের সমাজ থেকে পাইথন দর্শন এর সূচনা হয়েছে।

পাইথন একটি বহু-প্যারাডাইম প্রোগ্রামিং ভাষা (ফাংশন-ভিত্তিক, বস্তু-সংশ্লিষ্ট ও নির্দেশমূলক) এবং এটি একটি পুরোপুরি চলমান প্রোগ্রামিং ভাষা যার স্বনিয়ন্ত্রিত মেমরি ব্যবস্থাপনা রয়েছে। এদিক থেকে এটি পার্ল, রুবি প্রভৃতি প্রোগ্রামিং ভাষার মতো।

পাইথন ভাষার মুক্ত, কমিউনিটি-ভিত্তিক উন্নয়ন মডেল রয়েছে, যার দায়িত্বে আছে পাইথন সফটওয়্যার ফাউন্ডেশন নামের একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান। এই ভাষাটির বিভিন্ন অংশের বিধিবদ্ধ বৈশিষ্ট্য ও আদর্শ থাকলেও পুরো ভাষাটিকে এখনো সম্পূর্ণ বিধিবদ্ধ করা হয়নি। তবে কার্যত সিপাইথন ভাষাটির আদর্শ বাস্তবায়িত রূপ। খুবই সংক্ষিপ্ত, তবে ভাষাটির স্ট্যান্ডার্ড লাইব্রেরি অনেক সমৃদ্ধ। পাইথন প্রোগ্রামারদের সমাজ থেকে পাইথন দর্শন এর সূচনা হয়েছে।

১৯৯১ সালে ভ্যান রস্যিউম পাইথনের কোড প্রকাশ করেন (ভার্শন ০.৯.০) পাইথন ডিজাইনের এই ধাপেই ক্লাস ইনহেরিটেন্স, এক্সেপশন হ্যান্ডলিং, ফাংশন, ও প্রধান ডাটা টাইপ list, dict, str প্রভৃতি সংযুক্ত ছিল। এই প্রাথমিক প্রকাশে ছিল মডুলা-৩ থেকে ধার করা মডিউল সিস্টেম; ভ্যান রোসাম এই মডিউলকে “পাইথনের মূল প্রোগ্রামিং ইউনিটের একটি” আখ্যায়িত করেছেন। পাইথনের এক্সেপশন মডেলটিও অনেকটা মডুলা-৩’র মত যাতে কেবল অতিরিক্ত else যুক্ত হয়েছে ১৯৯৪ সালে পাইথনের প্রধান ফোরাম comp.lang.python গঠিত হয়, এবং পাইথনের ব্যবহারকারীদের জন্য তা মাইলফলক হিসেবে চিহ্নিত হয়।

১৯৯৪ সালের জানুয়ারি পাইথন ১.০ সংস্করণে প্রবেশ করে। এই সংস্করণে যে প্রধান বিষয়াদি যুক্ত হয় তা হলো ফাংশনাল প্রোগ্রামিং টুলস lambda, map, filter ও reduce। ভ্যান রস্যিউম বলেন “পাইথন lambda, reduce (), filter () ও map () অধিকার করেছে, (আমি বিশ্বাস করি) একজন লিস্প হ্যাকারের কাছ থেকে যে নিজেকে এগুলো থেকে বঞ্চিত মনে করছিল এবং কর্মক্ষম প্যাচগুলো সরবরাহ করেছে।” এর প্রধান অবদানকারী ছিলেন অমৃত প্রেম; এবং এর প্রকাশ নোটে সে সময় কোন লিস্প প্রোগ্রামের উত্তরসূরী হওয়ার উল্লেখ করা হয়নি।

পাইথন দিয়ে কি কি করা যায়?

পাইথন দিয়ে মোবাইল অ্যাপ, মোবাইল গেম, কম্পিউটার সফটওয়্যার, ওয়েব সাইট, ওয়েব অ্যাপ সহ আরও অনেক কিছু তৈরি করা যায়। আপনি পাইথন দিয়ে ডাটা সাইন্স, মেশিন লার্নিং সহ আরও অনেক কিছু করতে পারবেন।

পাইথনের অনেক লাইব্রেরী ও ডিপেনডেনসি আছে। পাইথন ফুল অবজেক্ত ওরিয়েন্টড প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ। পাইথনে ক্লাস, মেথড, ইনহেরিটেন্স, অবজেক্ত লাইফ সাইকেল সবই খুব সুন্দর ভাবে বুঝা যায়।

কেন পাইথন নিয়ে কাজ করবেন?

পাইথন একটা খুব ডাইনামিক ল্যাংগুয়েজ। এছাড়া পাইথন ওপেন সোর্স। পাইথনের ওয়েব ফ্রেমওয়ার্ক নিয়ে কাজ করতে চান, তাহলে খুবই সহজে কাজ করতে পাবেন। পাইথনের ওয়েব ফ্রেমওয়ার্ক বেশ কিছু আছে, সেগুলার মধেই জ্যাঙ্গো ফ্রেমওয়ার্ক খুবই পপুলার। এছাড়া ও পাইথন এর বেশ কিছু ফিচার আছে যেগুলো দিয়ে/নিয়ে আপনি কাজ করতে পারবেন। পাইথন শেখার জন্য অনলাইন এ অনেক গাইড লাইন আছে, সেগুলার হেল্প নিয়ে আপনি পাইথন প্রোগ্রামিং শিখতে পারবেন। শুধু পাইথন ব্লগ আর ভিডিও গুলা দেখালেই হবে না। সেই সব নিয়ে প্রতিদিন কাজ করতে হবে।

Leave a Reply