অস্ট্রেলিয়ার স্টুডেন্ট ভিসার উদ্দেশ্য যেভাবে লিখতে হবে

অস্ট্রেলিয়ার স্টুডেন্ট ভিসার উদ্দেশ্য যেভাবে লিখতে হবে

কাউসার খান, সিডনি (অস্ট্রেলিয়া) থেকে

আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীর সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। উচ্চশিক্ষা গ্রহণের তাদের গন্তব্যের তালিকায় অন্যতম দেশ অস্ট্রেলিয়া। প্রতি বছর বাংলাদেশসহ নানা দেশ থেকে হাজার হাজার শিক্ষার্থী এ দেশে পড়তে আসেন। তবে শিক্ষার পাশাপাশি এ দেশে স্থায়ী বসবাসের মনোবাসনা পোষণ করেন অনেকেই। এ জন্যেই শিক্ষার্থী বা স্টুডেন্ট ভিসায় আবেদন করার সময় আবেদনপত্রেই অস্ট্রেলিয়ার আসার উদ্দেশ্য উল্লেখ করা বাধ্যতামূলক করেছে দেশটির সরকার। অস্ট্রেলিয়ার প্রবেশের উদ্দেশ্য শুধুই যে শিক্ষা গ্রহণ এবং তা শেষে নিজ দেশে ফিরে যাওয়ার কথা স্পষ্ট ভাষায় লিখতে হয় আবেদনপত্রে। সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার আসার উদ্দেশ্য বা স্টেটমেন্ট অব পারপাস সঠিকভাবে লিখতে না পারার কারণে অনেকের ভিসা গৃহীত হচ্ছে না। তাই ভিসা পেতে হলে সঠিকভাবে স্টেটমেন্ট অব পারপাস লেখা জরুরি।

শিক্ষার্থী ভিসায় অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশের মাধ্যমে আবেদনকারী যে অস্থায়ীভাবে প্রবেশ করছেন, এই বিবৃতিদান জেনুইন টেম্পোরারি এন্ট্র্যান্ট (Genuine Temporary Entrant) বা জিটিইর অন্যতম অংশ। আবেদনপত্রে এই জিটিইর উল্লেখ করা অনেক আগে থেকেই আবশ্যিক শর্ত হিসেবে থাকলেও সম্প্রতি এর নিয়মে কিছুটা বেশি কঠোর হয়েছে দেশটির অভিবাসন বিভাগ। এই জিটিইর মাধ্যমে দেশটির অভিবাসন বিভাগকে নিশ্চিত করতে হয় যে, আবেদনকারী শুধুমাত্র শিক্ষা গ্রহণের উদ্দেশ্যেই অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশ করছেন এবং নির্ধারিত কোর্স শেষ হয়ে গেলে আবেদনকারী নিজ দেশে ফিরে যাবেন। অভিবাসন বিভাগ জিটিইতে মোটামুটি যে ৬টি বিষয়ের উল্লেখ দেখতে চায়, তা হলো:

নিজ দেশের শিক্ষাগত বা প্রাসঙ্গিক অবস্থা পরিস্থিতির বর্ণনা

অভিবাসন বিভাগ শিক্ষার্থী ভিসায় আবেদনকৃত কোর্স বা বিষয়ে আবেদনকারীর নিজ দেশে পড়ার সুযোগ রয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখবে। তাই আবেদনকারীকে জিটিইতে নিজ দেশে একই কোর্স আছে কিনা, থাকলে কেন নিজ দেশ বাদ দিয়ে অস্ট্রেলিয়ায় পড়তে আগ্রহী তার স্পষ্ট বর্ণনা দিতে হবে।

অস্ট্রেলিয়ায় আসতে চাওয়ার স্পষ্ট বর্ণনা

fb8a9d2fd83e2de8ed89b55e61bf2e6b-59984442d1997জিটিইতে অস্ট্রেলিয়া পড়তে চাওয়ার উদ্দেশ্য স্পষ্ট ভাষায় বর্ণনা করতে হবে আবেদনকারীকে। অর্থাৎ শিক্ষার্থী ভিসায় অস্ট্রেলিয়ায় আসার একমাত্র উদ্দেশ্যই যে পড়াশোনা তা বিবৃতিতে ভালোভাবে বুঝিয়ে লিখতে হবে। অভিবাসন বিভাগ জিটিইতে উল্লিখিত প্রতিটি কারণ খতিয়ে দেখবে।

আবেদনকারী যে কোর্স বা বিষয়ে অধ্যয়ন করতে ইচ্ছুক তার ভবিষ্যৎ বর্ণনা

আন্তর্জাতিক শিক্ষা উন্নত দেশগুলোর মতো অস্ট্রেলিয়ারও একটা বড় বাণিজ্য হলেও শিক্ষার্থীরা দেশটিতে পড়তে এসে কতটুকু উপকৃত হলো এ বিষয়ে খুবই সতর্ক তারা। তাই আবেদনকারীর সঙ্গে অনুপযোগী কোর্সে স্বাভাবিকভাবেই ভিসা দেবে না অস্ট্রেলিয়ার অভিবাসন বিভাগ। তাই জিটিইতে আবেদনকারীর নির্বাচিত কোর্সটি ভবিষ্যতে কীভাবে তাঁকে উপকৃত করবে তা স্পষ্ট ভাষায় উল্লেখ করতে হবে।

আবেদনকারীর পূর্বের অভিবাসন ইতিহাস

শিক্ষার্থী ভিসায় আবেদনের আগে আবেদনকারী অস্ট্রেলিয়াসহ আর কোন কোন দেশে ভ্রমণ করেছেন তারও একটা সংক্ষিপ্ত বর্ণনার উল্লেখ করতে হবে জিটিইতে।

এ ছাড়া আবেদনকারীর পরিবারের সদস্য ও তাদের সংক্ষিপ্ত বর্ণনাও উল্লেখ করতে হবে জিটিইতে। পাশাপাশি আবেদনকারীর ভিসার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট যেমন অভিভাবক, স্ত্রী-সন্তান এমন সকলের উল্লেখ থাকতে হবে। অভিবাসন বিভাগ শিক্ষার্থী ভিসার মাধ্যমে অস্ট্রেলিয়ায় স্থায়ী বসবাসের কোনো যোগসূত্র রয়েছে কিনা তা খুবই চৌকস নজরে খতিয়ে দেখবে। তাই আবেদনপত্রের সঙ্গে জিটিইতেই ওপরে উল্লিখিত বিষয়গুলোর স্পষ্ট বর্ণনা দেওয়াটা খুবই জরুরি।

কাউসার খান: অভিবাসন আইনজীবী

সূত্র: প্রথম আলোfavicon59-4

Leave a Reply