ব্যাক্তিত্ববান হতে হলে . . .

ব্যাক্তিত্ববান হতে হলে . . .

লিডারশিপ ডেস্ক: ব্যাক্তিত্ববান মানুষকে কে না পছন্দ করে? কর্মক্ষেত্রে তো বটেই, এমন কি পরিবার, আত্মিয় স্বজন, বন্ধুবান্ধব সবার কাছেই ব্যাক্তিত্ববান মানুষের বিশেষ কদর। তাছাড়া প্রত্যেকেই চাই, অন্যের কাছে আকর্ষনীয় এবং আরোধ্য হয়ে উঠতে। এ জন্য সুন্দর ব্যাক্তিত্ব গঠনের বিকল্প নেই। ব্যাক্তিত্ববান মানুষকে সবাই ভালোবাসে, শ্রদ্ধা করে এবং তার সানিধ্য পেতে চাই। চলুন আজ জেনেনি ব্যাক্তিত্ববান হওয়ার কিছু অাবশ্যকতা।


চেহারা: কিভাবে হওয়া যায় ব্যাক্তিত্ববান মানুষ? সুন্দর আকর্ষনীয় চেহারা থাকলেই কি ব্যাক্তিত্ববান হওয়া যায়? না, ব্যাক্তিবান হতে সুন্দর চেহারা লাগে না, লাগে চেহারার সুন্দর উপস্থাপন।

ইংরেজি ভাষায় দখল: ব্যাক্তিত্ববান হতে হলে কি ভাল ইংরেজি জানা লাগে? না, বেশি বেশি ইংরেজি বলতে জানা লাগে না, লাগে যা জানেন তার শুদ্ধ প্রয়োগ। তাহলে কি ব্যাক্তিত্ববান হতে খুবই স্টাইলিস হওয়া লাগে? না, তাও নয়। ইস্টালিস হওয়া লাগে না, লাগে মার্জিত হওয়া। অর্থাৎ আপনার যা কিছু আছে, আপনি যেমন, তাই একটু আলাদা ভাবে, বুঝে সতর্কতার সাথে সম্পুর্ণ নিজের মত করে উপস্থাপন করলেই হয়ে উঠতে পারেন একজন আকর্ষনীয় চরিত্র, ব্যাক্তিত্ববান মানুষ।

সুন্দর বলতে পারা: আরও কিছু ছোট্ট ছোট্ট বিষয় খেয়াল রাখা জরুরী। যেমন, কারো সাথে কথা বলার ক্ষেত্রে প্রয়োজনের অতিরিক্ত কথা বলা থেকে বিরত থাকুন। আপনার বাড়ি দেশের যে কোন প্রান্তে হতে পারে। তবে কথা বলার সময় আঞ্চলিকতা সম্পুর্ণ রুপে পরিহার করুন। খুব দ্রুত বা খুব ধীরে, একনাগাড়ে বেশি ক্ষণ কথা বলা থেকে বিরত থাকুন। একটু সময় নিয়ে ভেবে দেখুন, কথা বলার সময় আপানর কোন বিষয়গুলো অন্যের দৃষ্টিকটু দেখাতে পারে। সেগুলো এড়িয়ে চলুন। সুন্দর সুন্দর শব্দ চয়ন করুন এবং গুছিয়ে কথা বলুন।

পরিবারের প্রশংসা: প্রতিবার সাজগোজের পর মা অথবা সঙ্গি/সঙ্গিনীকে অকপটে জিজ্ঞেস করুন, আমাকে কেমন দেখাচ্ছে? দেখবেন তার ছোট্ট একটু প্রশংসা আপনার আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিবে বহুগুন। এমন প্রশংসা আপনাকে সারাদিন চনমনে রাখবে, যা আপনা থেকেই আপনার সুন্দর ব্যাক্তিত্ব ফুটিয়ে তুলবে।

মানুষকে মূল্যয়ন: চাকরিতে আপনার পদ বা সামাজিক অবস্থানের কারণে সবসময় গুরুগম্ভীর হয়ে থাকবেন না। আপনার কথা বলা, চাহনি এবং অন্যের সাথে ভাব বিনিময় যেন বন্ধুত্বপূর্ণ হয়। আপনার চেয়ে বয়সে অনেক ছোট এমন কাইকে শুরুতেই ‘তুমি’ বলে সম্বোধন করবেন না বা ছোট করে দেখবেন না। আপনার অনেক পরে জন্ম নিয়েছে, এটা তার অপরাধ নয়, বরং সে আপনার সাথে মিসতে পারছে, এটা তার যোগ্যতা। । অন্যের কাজ বিবেচনা করে তাকে মুল্যয়ন করুন।

অন্যের কথায় মনোযোগ: অন্যের কথায় মনোযোগি হোন। আপনাকে কেউ কিছু বললে, সম্পুর্ণ মনোযোগ তার দিকে রেখে কথাগুলো শুনুন। দেখবেন সে আপানকে অন্যদের চেয়ে বেশি সম্মান করছে।

অন্যের প্রশংসা: অন্যের প্রশংসা করতে শিখুন। অন্যের ভালো কাজ বা সাফল্যে প্রশংসা করুন। তাকে উৎসাহ দিন। কারো কাছ থেকে কোন রকম সহযোগিতা পেলে, কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে কুন্ঠ বোধ করবেন না। কৃতজ্ঞতা প্রকাশই আপনার ব্যাক্তিত্ব বাড়িয়ে দিবে বহুগুণ।

সৎ থাকুন: যা কিছইু বলি না কেন, ব্যাক্তিত্ববান হওয়ার প্রথম এবং প্রধান শর্ত হল সৎ হওয়া। আপনি যদি সৎ ব্যাক্তি না হোন, তাহলে যতই আচরণগত পরিবর্তন আনুন না কেন মানুষের ভালোবাাস আপনি পাবেন না। সৎ চরিত্র ছাড়া ব্যাক্তিত্ববান হওয়া সম্ভব নয়। favicon

রচনা: মোস্তাফিজুর রহমান
মডেল: সজিব খান
ফটোগ্রাফি: এস এম রাসেল

Leave a Reply