‘আঁই টিপসই করি ন’

‘আঁই টিপসই করি ন’

  • লিডারশিপ ডেস্ক

শিক্ষা মৌলিক অধিকার, বিষয়টি কারো অজানা নয়। আর তাই নিরক্ষরমুক্ত দেশ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে সরকারি ও বেসরকারি নানা প্রতিষ্ঠান কাজ করে যাচ্ছে। তবে অক্ষর জ্ঞান নেই এমন লোকের সংখ্যাও নেহাতই কম নয়। আর এসব অক্ষরজ্ঞানহীন মানুষদের জন্য ঘরে ঘরে গিয়ে সাক্ষরতা শিখিয়ে ফেনীকে নিরক্ষরমুক্ত করার প্রত্যয় নিয়ে শুরু হয়েছে ‘আঁই টিপসই করি ন’ নামের একটি প্রকল্প।

শুরুতেই একটি ওয়ার্ডে নিরক্ষর ব্যক্তি খুঁজে বের করে তাদের একটি তালিকা তৈরি করা হয়। তারপর নিয়মিত বাসায় গিয়ে গিয়ে তাদেরকে নিজের নাম লেখানো হয়। এর মধ্যে কেউ বাদ পড়লে তাদেরকেও তালিকায় যুক্ত করা হয়। এভাবেই কাজ চলছে প্রকল্পটির। বৃদ্ধ কিংবা বাসাবাড়িতে কাজ করে এমন অনেক নিরক্ষর ব্যক্তিকে নিরক্ষরতার অন্ধকার থেকে মুক্তি দিতে প্রকল্পটির আয়োজন। ‘আঁই টিপসই করি ন’ প্রকল্পের নির্দেশক হিসেবে আছেন জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার সোহেল রানা। তিনি জানান, পথের পাঠাশালা নামে একটি স্কুল আছে যেটি কলেজ শিক্ষার্থীরা মিলে তৈরি করেছে। স্কুলটি পরিদর্শনে গিয়ে তাদের কার্যক্রমগুলো বেশ ভালো লাগে। তারা ফেনীকে নিরক্ষরমুক্ত করার জন্য কাজ করতে চায়। আমি তাদেরকে সাক্ষরতা প্রদানে ঘরে ঘরে গিয়ে সাক্ষরতা দেওয়ার কথা বলি, তাদের মধ্যে বেশ আগ্রহ দেখতে পাই। এরপরই শুরু হয় ‘আঁই টিপসই করি ন’ প্রকল্প নিয়ে পরিকল্পনা। কার্যক্রমটি চালিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে সহযোগিতা করার কথা বলতেই বেশ আনন্দের সঙ্গে তারা কাজ শুরু করেন।

‘আঁই টিপসই করি ন’ প্রকল্পটিতে বর্তমানে ৪০ জন স্বেচ্ছাসেবী কাজ করছেন, যারা সবাই কলেজ কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। মাত্র ৬ দিনেই ফেনী পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের সাক্ষরতা প্রদান শেষ হয়েছে বলে জানান প্রকল্পের সমন্বয়ক সাজ্জাদ হোসেন দিপু। ৪০ জন সদস্য মিলে এই ওয়ার্ডের ১২০ জনকে সাক্ষরতা দিয়েছেন। জেলা প্রশাসন ও পৌরসভার সহযোগিতা করছেন প্রকল্পটিতে। গত ৮ মে উদ্বোধন করা হয় প্রকল্পটির। ফেনী জেলার প্রাক্তন জেলা প্রশাসক মো. আমিন উল আহসান ও পুলিশ সুপার এসএম জাহাঙ্গীর আলম সরকার প্রকল্পের উদ্বোধন করেন। পথের পাঠশালা, রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি ফেনী জেলা, ফেনী লিও ক্লাবসহ প্রকল্পটিতে সর্বমোট ১২টি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন কাজ করছে।

সূত্র: ইত্তেফাকfavicon59-4

Leave a Reply